সেলিম রানা, চরফ্যাসন প্রতিনিধি : গত ৬ ডিসেম্বর ভোলার চরফ্যাসন উপজেলার দক্ষিণ আইচা থানার ঢালচর ইউনিয়ন থেকে ৩৫ কিলোমিটার দক্ষিণে বঙ্গোপসাগরে ২১ জেলে নিয়ে মা সামসুন্নার নামে একটি ট্রলার ডুবির ঘটনা ঘটে।

ঘটনার পরের দিন ১২ ঘন্টা পর তক্তার উপর ভাসমান অবস্থায় ট্রলার মালিকের ছোট ভাই হাফিজ নামে এক যুবককে উদ্ধার করা হয়।

ট্রলার ডুবির ঘটনা ঘটার ৬ দিন পর নিখোঁজ ২০ জেলের মধ্যে সন্ধান মিলে চট্রগ্রাম বাশঁখালির এমভি সাকিব নামে একটি ট্রলারে নিখোঁজ ৩ জেলেকে নদী থেকে উদ্বার করেন।

এদিকে ২৮ দিন অতিবাহিত হলেও এখনো নিখোঁজ রয়েছে চরফ্যাসনের ১৭ জেলে। এসব জেলে পরিবারে চলছে শোকের মাতাম। পরিবারের আয় অপার্জনের একমাত্র ব্যক্তিকে হাড়িয়ে খেয়ে না খেয়ে দিন কাটাচ্ছেন এসব জেলে পরিবারের।

এসব জেলে পরিবারের কথা চিন্তা করে চরফ্যাসন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আল নোমান রাহুল জেলে পরিবারকে ত্রাণসমগ্রী ও কম্বল বিতরণ এর নির্দেশ দেন চরমানিকা ইউপি চেয়ারম্যানকে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নির্দেশক্রমে সোমবার (৩ জানুয়ারী) সকাল ১০টায় নিখোঁজ জেলে পরিবারের মাঝে চেয়ারম্যান আলহাজ্ব শফিঊল্লাহ হাওলাদার ২০ কেজি চাল, ডাল, সোয়াবিন তেল, লবণ, ও কম্বল বিতরণ করেন।

বিতরণের সময় উপস্থিত ছিলেন- চরমানিকা ২নং ওয়ার্ডের নবনির্বাচিত ইউপি সদস্য মোঃ সবুজ, ৫নং ওয়ার্ড গিয়াসউদ্দিন সাগর, ৬নং ওয়ার্ড ছালাঊদ্দিন মুন্সীসহ অন্যান্য ইউপি সদস্য।