মুনীরুল ইসলাম, শ্রীনগর (মুন্সিগঞ্জ) প্রতিনিধি : নারায়ণগঞ্জে র‌্যাবের হাতে ২ কভার্ড ভ্যান থেকে ৩৭ হাজার বোতল মদ উদ্ধারের ১২ দিন পরই মূল হোতা আজিজুল চেয়ারম্যানের ৪ সপ্তাহের অস্থায়ী জামিন হয়েছে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে আওয়ামী লীগের ধর্ম বিষয়ক উপ কিমিটর সহ সম্পাদক ও শ্রীনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা আজিজুল ইসলাম ও তার বড় ছেলে আশিক হাইকোর্ট থেকে জামিন নেন। পরে বিকাল ৪ টার দিকে তিনি প্রথমে ষোলঘর ইউনিয়ন পরিষদে ও পরে তার নিজ বাড়িতে আসেন।

গত ২৩ জুলাই চট্টগ্রাম পোর্ট থেকে আসা ২টি কভার্ড ভ্যান নারায়নগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে আটক করে র‌্যাব। এসময় সেখান থেকে আজিজুল ইসলামের ২ কর্মচারীকে আটক করা হয়। পরে ঢাকা বিমানবন্দর এলাকা থেকে আটক করা হয় আজিজুল ইসলামের ছেলে আহাদকে।

এর আগে ঐদিনই আজিজুল ইসলাম ও তার বড় ছেলে আশিককে নিয়ে দুবাই পালিয়ে যায়। র‌্যাব তার ঢাকার বাড়ি থেকে উদ্ধার করে কোটি টাকা মূল্যের বৈদেশিক মূদ্রা। পরদিন র‌্যাবের মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মলনে পুরো অভিযানের বিষয়টি তুলে ধরা হয়। এই ঘটনায় র‌্যাব আজিজুল তার ২ ছেলে ও কর্মচারী সহ ১১ জনের বিরুদ্ধে সোনারগাঁও থানায় মামলা দায়ের করে।

আজিজুল ইসলাম মামলা দায়েরের ১২ দিন পরই তার বড় ছেলে সহ হাইকোর্ট থেকে জামিন নিয়ে বৃহস্পতিবার বিকালে এলাকায় আসেন। সূত্র জানায়, উচ্চ আদালত তাদের ৪ সপ্তাহের জামিন দিয়ে নিন্ম আদালতে আত্মসমর্পনের নির্দেশ দেয়। তবে র‌্যাবের হাতে আটক ছোট ছেলে আহাদের এখনো জামিন হয়নি।

এক্সপ্রেসওয়ে থেকে শ্রীনগর হয়ে ষোলঘর ইউনিয়ন পরিষদে আসেন। এসময় তার সমর্থকরা ফুলের মালা দিয়ে বরণ করে নেন। সমর্থকদের উদ্দেশ্যে আজিজুল ইসলাম বলেন, তিনি রাজনৈতিক প্রতিহিংসার স্বীকার হয়েছেন। মদের চালান তিনি আনেননি। সুষ্ট বিচারে নির্দোষ প্রমাণিত হবেন ইনশাআল্লাহ। ব্যবসা করে টাকার মালিক হয়েছেন। এমনও হয়েছে ৩ মাসে ৪শ কোটি টাকা ট্যাক্স দিয়েছেন। এটা অনেকের সহ্য হচ্ছে না।

৩৭ হাজার মদের বোতলের মত এতোবড় চোরাচালানী মামলার আসামী হয়ে ১২ দিনে জামিনে বের হয়ে আসায় এলাকায় চলছে নানা আলোচনা।