কাজী খলিলুর রহমান, ঝালকাঠি প্রতিনিধি : ঢাকা থেকে ঝালকাঠির নলছিটিতে বেরাতে এসে গণধর্ষণের শিকার হয়েছে এক কিশোরী (১৬) । কিশোরীকে ধর্ষণ ও ধর্ষণের সহায়তার অভিযোগে ৫ জনের নামে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

অভিযুক্তরা হলেন, বরিশাল জেলার বাকেরগঞ্জ থানার মোতালেব সিকদারের ছেলে মোঃ মোজাফফর সিকদার (৪৮), একই থানার মতিউর রহমানের ছেলে মোঃ আরিফ হোসেন (৩০), মোসাঃ শাহিদা বেগম (৪৫) স্বামী মোঃ লিটন হাওলাদার, মোসাঃ আসমা বেগম (৪২) স্বামী মোঃ লিটন হাওলাদার ও ঝালকাঠি জেলার নলছিটি থানা নিবাসী বেলাল হাওলাদারের ছেলে মোঃ রাসেল হাওলাদার (৩৫)।

এ ঘটনায় মামলা দায়ের করার পরে পুলিশ মঙ্গলবার রাতে উপজেলার দপদপিয়া ইউনিয়নের শেখরকাঠি গ্রাম থেকে অভিযুক্ত চারজনকে গ্রেপ্তার করেছে।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন- মোজাফফর শিকদার (রাঙ্গা) ( ৪৮ ), আরিফ হোসেন (৩০) মোসাঃ শাহিদা বেগম (৪৫) ও মোসাঃ আসমা বেগম (৪২)। এ ঘটনায় মোঃ রাসেল হাওলাদার (৩৫) নামে আরেক যুবক পলাতক রয়েছে।

নলছিটি থানার ওসি মো. আতাউর রহমান জানান, ঢাকার কেরানিগঞ্জ চৌধুরীপাড়া এলাকার বাসাভাড়া করে থাকতেন নলছিটি উপজেলার দপদপিয়া ইউনিয়নের একটি গ্রামের লিটন হাওলাদারের স্ত্রী শাহিদা বেগম। তাদের পাশের বাসায় বসবাস করতো এক কিশোরী। প্রতিবেশী হওয়ায় তাদের মধ্যে সম্পর্ক গড়ে ওঠে। শাহিদার সাথে ওই কিশোরী গত ২৯ আগস্ট নলছিটির দপদপিয়া ইউনিয়নে তাদের গ্রামের বাড়িতে বেড়াতে আসে। গত ২৯ আগস্ট বিকেলে ওই নারীর বাসায় পোনামাছ ব্যবসায়ী মোজাম্মেল সিকদার রাঙ্গা, আরিফ হোসেন ও রাসেল হাওলাদার কিশোরীকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে।

এ ঘটনায় স্থানীয় দুই নারী শাহিদা বেগম ও আছমা বেগম নামে দুই নারী সহযোগিতা করে। মেয়েটি গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লেও তাকে কোন চিকিৎসা করানো হয়নি। উল্টো এ ঘটনা কাউকে না বলার জন্য চাপ দেওয়া হয়। নির্যাতিত ওই কিশোরী কৌশলে ঘর থেকে বেড় হয়ে মঙ্গলবার দুপুরে স্থানীয় কয়েকজন বাসিন্দাকে বিষয়টি জানালে তাঁরা পুলিশে খবর দেয়। পুলিশ গিয়ে মেয়েটিকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।

এ ঘটনায় অভিযুক্ত পাঁচজনের নামে মামলা করে ওই কিশোরী। পুলিশ রাতেই অভিযান চালিয়ে মোজাম্মেল সিকদার রাঙ্গা, আরিফ হোসেন, শাহিদা বেগম ও আছমা বেগমকে গ্রেপ্তার করে। আসামি রাসেল হাওলাদার পলাতক রয়েছে। মেয়েটিকে ঝালকাঠি সদর হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করা হয়েছে।

নলছিটি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আতাউর রহমান জানান, কিশোরীর বাদী হয়ে পাঁচ জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করেছেন। এ ঘটনায় চারজনকে গ্রেফতার করে আদালতে প্রেরন করা হয়েছে । কিশোরীকে চিকিৎসার জন্য ঝালকাঠি সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।আর বাকি একজনকে গ্রেপ্তারে অভিযান চলমান রয়েছে।