বগুড়া অফিস : বগুড়ার নন্দীগ্রামে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রেজাউল আশরাফ জিন্নাহকে দল থেকে বহিস্কার দাবি করেছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থীরা।

গত মঙ্গলবার নন্দীগ্রাম আওয়ামী লীগ দলীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ দাবী জানান উপজেলার চারটি ইউনিয়ন পরিষদের আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থীরা।

সংবাদ সম্মেলনে ভাটগ্রাম ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি জুলফিকার আলী লিখিত বক্তব্যে বলেন, আগামী ২৬ ডিসেম্বর নন্দীগ্রাম উপজেলার ৪টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। তাই গত ২১ নভেম্বর নৌকা প্রতীকে নির্বাচন করার জন্য প্রার্থী মনোনয়ন দেয়া হয় দলের পক্ষ থেকে। কিন্তু প্রধানমন্ত্রীর মনোনয়নকে চ্যালেঞ্জ করে বক্তব্য দেন উপজেলা চেয়ারম্যান।

সংবাদ সম্মেলনে আরো বলা হয়, তিনি ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী হয়ে উপজেলা নির্বাচনে অংশ নেন। এরপর ২০১৪ সালেও উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ঘোড়া প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করেন। সেই নির্বাচনে তিনি আওয়ামী লীগের প্রার্থীকে ষড়যন্ত্র করে পরাজিত করেন। এই নির্বাচনে তার ষড়যন্ত্রের কারণে জামায়াতের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। সর্বশেষ ২০১৮ সালের ১৮ মার্চ তিনি নৌকা প্রতীক নিয়ে দলীয় নেতাকর্মীদের সহযোগীতায় উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন।

জিন্নাহ তার পছন্দের প্রার্থী মনোনয়ন না পেলে, দলের বিরুদ্ধে এবং নৌকার বিরুদ্ধে প্রকাশ্যেই ভোট করেন।

এবারও তিনি বিদ্রোহী প্রার্থীদের পক্ষে ভোট করছেন। শুধু এই নির্বাচন নই, পূর্বের সকল ইউনিয়ন, পৌরসভা, উপজেলা, সংসদ নির্বাচনে তার প্রকাশ্যে দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে অবস্থান নেয়া একটি অন্যতম উদাহরণ।

এ ছাড়া দলীয় সকল কর্মসূচিতে আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে বিএনপি-জামায়াতের সঙ্গে আঁতাত করে রাজনীতি করেন।

আমরা তার উক্ত অপকর্মের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। সেই সাথে উপজেলা চেয়ারম্যান রেজাউল আশরাফ জিন্নাহকে দল থেকে বহিস্কারের জোর দাবি করছি। অন্যথায় নৌকার পরাজয়ের সকল দায়ভার রেজাউল আশরাফ জিন্নাহকে বহন করতে হবে।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, আওয়ামী লীগের মনোনীত নৌকা মার্কার প্রার্থী মখলেছুর রহমান, মোরশেদুল বারী, হাফিজুর রহমান।