আব্দুর রশীদ তারেক, নওগাাঁ : নওগাঁয় শয়ন কক্ষ থেকে মা-ছেলের মৃতদেহ উদ্ধার করেছে মান্দা থানা পুলিশ। শনিবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে জেলার মান্দা উপজেলার গনেশপুর সরদারপাড়া এলাকায় এঘটনাটি ঘটে। নিহতরা হলেন, ওাই গ্রামের ময়ের উদ্দীনের স্ত্রী আমেনা খাতুন (২২) ও ছেলে আমির হামজা।

এ ঘটনায় পুলিশ রোববার ভোরে আত্মহত্যার প্ররোচনা মামলায় নিহতের শাশুড়ী এজেদা বিবি (৫৫)কে আটক করেছে। ঘটনার পর থেকে স্বামী ময়েন উদ্দীন পলাতক। পুলিশ রাতেই লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠিয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, মধ্যরাতে হঠাৎ হইচয়ের কারণে ওই বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, শয়নকক্ষে খাটের ওপর মা ও ছেলে মরদেহ পড়ে আছে। বাড়ির লোকজন বলাবলি করছে কীটনাশকপানে মারা গেছে।

নিহতের মামা আশরাফুল ইসলাম বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখি মা ও ছেলের লাশ খাটের ওপর পড়ে আছে।

নিহতের চাচা সাগর মাহমুদ জানান, বিয়ের সময় একটি মোটরসাইকেল ও আসবাপত্র দেয়া হয়েছিল। কিন্তু আরো টাকা, গহনা, আসবাপত্রের জন্য মাঝেমধ্যেই আমেনাকে মারধর করত। ঘটনার ৩ সপ্তাহ আগে পারিবারিক শালিশের মাধ্যমে আমেনাকে শুশুর বাড়িতে রেখে যাওয়া হয়। এটা পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে।

মান্দা থানার ওসি শাহিনুর রহমান জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে মা ও ছেলের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় শাশুড়ীকে আটক করা হয়েছে। কীটনাশক খেয়ে আত্মহত্যার কথা ছড়ালেও মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যায়নি। তদন্ত রিপোর্ট পেলেই জানা যাবে।