আব্দুল মজিদ মল্লিক, নওগাঁ : নওগাঁ অপহরণ করে মেয়েদের সঙ্গে আপত্তিকর ছবি তুলে মুক্তিপণ দাবি করতেন এমন ৪ জনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব-৫) জয়পুরহাট ক্যাম্পের সদস্যরা। এ সময় উদ্ধার করা হয়েছে এক ভিকটিমকে।

বৃহস্পতিবার সকালে র‌্যাব-৫ থেকে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। এর আগে বুধবার রাতে নওগাঁ শহরের পাটালির মোড় থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন- শহরের পাটালির মোড় এলাকার আব্দুর রহিমের ছেলে দুলাল হোসেন (৩৮), লুৎফর রহমানের ছেলে ইমরান হোসেন হিরা (৩৬), সদর উপজেলার কাঠ খৈইর এলাকার তাহের আলীর ছেলে হুজুর আলী (৪০), হাট-নওগাঁ এলাকার আক্তারুল জামানের ছেলে মেহেদী হাসান রনি (২০)।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গ্রেফতারকৃত চার জন দীর্ঘদিন ধরে সাধারণ মানুষকে অপহরণ করে দুলাল হোসেনের ভাড়া বাসায় আটকে রেখে বিভিন্ন মেয়েদের সাথে আপত্তিকর ছবি তুলে মুক্তিপণ দাবি ও আদায় করতো। এই সিন্ডিকেটের সদস্য সংখ্যা ৮-১০ জন যার নেতৃত্বে রয়েছে মূলহোতা দুলাল হোসেন।

বুধবার সকাল ১১টার দিকে ভিকটিম আব্দুস সামাদকে জমির কাগজ দেখানোর নাম করে দুলাল হোসেন ও হুজুর আলী ওরফে ভুনা উভয়েই মিলে অপহরণকারী দুলালের বাসায় নিয়ে আসে। এরপর ভিকটিমকে এক নারীর সাথে আপত্তিকর ছবি তুলে ও ভিডিও করে তা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়া এবং ভিকটিমের আত্মীয়-স্বজনের কাছে বিলিয়ে দেওয়ার নাম করে তার কাছে দেড় লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে। এরপর মুক্তিপণ হিসেবে ভিকটিম তার পরিবারের কাছে ফোন দিয়ে ৭৫ হাজার টাকা নিয়ে অপহরণকারীদের প্রদান করে। পরবর্তীতে অপহরণকারীরা আরও ৭৫ হাজার টাকা দাবি করে এবং টাকা না দিলে অপহরণকারী দুলালের বাসায় আটকে রাখে।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, এমন সংবাদের ভিত্তিতে জয়পুরহাট র‌্যাব-৫ ক্যাম্পের একটি চৌকস অপারেশন দল অভিযান চালিয়ে মূলহোতাসহ চার অপহরণকারীকে গ্রেফতার করে। এসময় ভিকটিমকে উদ্ধারসহ ভিকটিমের দেওয়া ৫০ হাজার টাকা জব্দ করা হয়। এ বিষয়ে তাদের বিরুদ্ধে নওগাঁ সদর মডেল থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে বলেও সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।