এম. মনিরুজ্জামান, রাজবাড়ী প্রতিনিধি : পদ্মায় পানি বৃদ্ধি সাথে সাথে তীব্র স্রোত সৃষ্টির কারণে দেশের গুরুত্বপূর্ণ দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে ফেরি চলাচল ব্যাহত হচ্ছে। এতে করে দৌলতদিয়া ঘাট এলাকায় মহাসড়কে চার কিলোমিটার এলাকায় কয়েক’শ যানবাহন নদী পারের অপেক্ষায় পড়েছে। ৮-১০ ঘন্টায়ও ফেরির নাগাল পাচ্ছে না পণ্যবাহি যানবাহনগুলো।

পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্র জানায়, সোমবার সকাল ৬টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় পদ্মা নদীর গোয়ালন্দ ঘাট পয়েন্টে ২২ সেন্টিমিটার পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। এর আগের ২৪ ঘন্টায় ৩৬ সেন্টিমিটার পানি বৃদ্ধি পেয়েছিল।

সোমবার সকাণে দৌলতদিয়া ঘাট এলাকায় সরেজমিন দেখা যায়, নদীতে তীব্র স্রোতের কারণে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে ফেরি চলাচল বিঘ্নিত হচ্ছে। প্রতিটি ফেরি নদী পার হতে স্বাভাবিক সময়ের চেয়ে প্রায় দ্বিগুণ সময় লাগছে। এর ফলে ফেরির টিপ কমে গিয়ে ঘাটে যানবাহন পারের অপেক্ষায় থাকছে।

ফলে ঘাটের জিরো পয়েন্ট থেকে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের গোয়ালন্দ ফায়ার সার্ভিস পর্যন্ত চার কিলোমিটার এলাকাজুড়ে পন্যবাহী ট্রাকের সিরিয়াল রয়েছে। এরমধ্যে ১ কিলোমিটার এলাকায় যাত্রীবাহী বাসের সিরিয়াল রয়েছে। তবে জনদুর্ভোগ কমাতে যাত্রীবাহী যানবাহন ও কাঁচামালবোঝাই ট্রাকগুলো অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পারাপার করছে কর্তৃপক্ষ।

চুয়াডাঙ্গা থেকে ছেড়ে আসা ঢাকাগামী ট্রাক চালক সোহেল মোল্লা জানান, রোববার দিনগত রাত ৩টার দিকে দৌলতদিয়া ঘাট অভিমুখে যানবাহনের দীর্ঘ সারিতে তিনি আটকা পড়েছেন। তিনি বলেন, সামনে শতশত গাড়ীর জট,তাতে বিকেলও ফেরি পাব কিনা বুঝা যাচ্ছে না। কখন পাব তাও বলতে পরছি না।

বিআইডব্লিউটিসি সূত্র জানায়, দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে ২০টি ফেরির মধ্যে ছোট-বড় মিলিয়ে ১৬ টি ফেরি চলাচল করছে। বাকি ৪ টি ফেরি মধ্যে ২টি ফেরি তীব্র স্রেতের বিপরীতে চলতে না পারায় বসিয়ে রাখা হয়েছে এবং ২টি ফেরি পাটুরিয়ার ভাসমান কারখানা মধুমতি ডর্কএয়ার্ডে মেরামতে রয়েছে।

বিআইডব্লিউটিসি দৌলতদিয়া কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক প্রফুল্ল চৌহান বলেন, ফেরি চলাচল ব্যহত হওয়ায় দৌলতদিয়া ঘাট এলাকার নদী পারের অপেক্ষায় কিছু যানবাহন সিরিয়ালে আটকা পড়েছে। আশা করছি দ্রুত সময়ের মধ্যে এ চাপ কমে আসবে। তবে দুর্ভোগ কমাতে যাত্রীবাহী যানবাহন ও কাঁচামালের ট্রাকগুলো অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পারাপার করা হচ্ছে।