এম. মনিরুজ্জামান, রাজবাড়ী প্রতনিধি : ঈদে নাড়ীর টানে পরিবার পরিজনের কাছে যেতে রাজধানী ছাড়ছে কর্মজীবী মানুষ। প্রতি বছরের থেকে অন্য চিত্র এবার দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে। ফেরি ও লঞ্চের সংখ্যা বেশি থাকায় ভোগান্তি ছাড়াই এবার বাড়ি ফিরতে পারছেন তারা। তবে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের অভিযোগ রয়েছে যাত্রীদের। সেই সাথে লঞ্চে ধারণ ক্ষমতার থেকেও বেশি যাত্রী নেয়ার অভিযোগ। ঈদে স্বাভাবিক সময়ের থেকে যাত্রীদের চাপ বেশি থাকে বলে জানায় ঘাট কর্তৃপক্ষ।

শনিবার বিকালে দৌলতদিয়া লঞ্চ ঘাটে সরেজমিনে দেখা যায়, পাটুরিয়া প্রান্ত থেকে ছেড়ে আসা একাধিক লঞ্চে অতিরিক্ত যাত্রী রয়েছে। ধারণ ক্ষমতার দ্বিগুণ যাত্রী নিয়ে ভিড়ছে দৌলতদিয়া ঘাটে। তবে লঞ্চের টিকিটে ২৫ টাকা ভাড়ার মূল্য থাকলেও নেয়া হচ্ছে ৩৫ টাকা এমন অভিযোগ যাত্রীদের।

লঞ্চের যাত্রী সোহেলী আক্তার বলেন, গাবতলী থেকে পাটুরিয়া ঘাট পর্যন্ত ৩০০ টাকা ভাড়া দিতে হলেও তেমন কোন ভোগান্তি ছাড়াই এসেছি। পাটুরিয়া এসেই লঞ্চ পেয়েছি তবে টিকিটের আগের মুল্যে ২৫ টাকা থাকলেও দিতে হয়েছে ৩৫ টাকা। সেই সাথে লঞ্চে ধারণ ক্ষমতার চেয়ে অধিক যাত্রী নেয়া হচ্ছে। নদীর মাঝখানে এসে অনেক ভয় পেয়েছি। নদীর মাঝখানে আসলেই নদীর অশান্ত রুপ দেখতে পাই। বিষয়টি কর্তৃপক্ষের দেখা উচিত।

বিআইডব্লিউটিএ’র দৌলতদিয়া ঘাটের ট্রাফিক পরিদর্শক আফতাব হোসেন বলেন, ঈদের আগে অতিরিক্ত যাত্রীর চাপ রয়েছে। তারপরেও আমরা যাত্রীদেরকে লঞ্চে উঠার বিষয়ে সচেতনতার কাজ করছি। আর লঞ্চ চালকদের কড়া নির্দেশ দেয়া হয়েছে যাতে লঞ্চে অতিরিক্ত যাত্রী না উঠায়।