দেবীগঞ্জে (পঞ্চগড়) প্রতিনিধি : দেবীগঞ্জে আমন ধান কাটা শুরু হয়েছে পুরোদমে। জমিতে প্রায় ১০জন ১৫ জন করে লাইন হয়ে ধান কাটতেছে আনন্দের সহিত। এ ধান যেন কৃষকের মনে আনন্দের ধানের বাম্পার ফলন ও দামে কৃষক খুশি। প্রতি মন মোটা ধান বিক্রি হচ্ছে ১ হাজার ৫০ টাকা দরে।

দেবীগঞ্জের জমি এমনিতেই অপেক্ষাকৃত উচু। এবারের পর্যাপ্ত বৃষ্টিপাত, ধানের রোগবালাই কম, ও সার সরবরাহে ব্যাপকতা থাকায় আমন চাষ এ জেলার কৃষকদের আশির্বাদ হিসেবে দেখা দিয়েছে। অনেক কৃষক আগাম জাতের ধানের চাষ করেছে। তারা আগাম ধান কর্তন করে ভাল দামে ধানের খড় বিক্রি করছে। কারণ এ সময় গরুর খড়ের চাহিদা থাকে প্রচুর।

কার্তিকের শেষের দিকে আগাম ধান কর্তন করার সুবিধা থাকায় কৃষকেরা লাভবান হয়। ধান বিক্রি করে কৃষক অন্য ফসলে এ অর্থ বিনিয়োগ করতে পারে যেমন, আগাম আলু , কপি , মুলা, সরিষা।

বিঘা প্রতি ধানের ফলন ১৩ থেকে ১৫ মন পর্যন্ত হচ্ছে। দেবীগঞ্জ উপজেলার সবুজপাড়া গ্রামের কৃষক অনিল জানান, এবার তিনি স্বর্ণ জাতের ধান ৫ বিঘা জমিতে চাষ করেছেন, বিঘা প্রতি ফলন পেয়েছেন ১৬ মন করে।

দেবীগঞ্জ উপজেলার রামগঞ্জ বিলাসী নগর পাড়ার কৃষক শাহজালাল আলী জানান, বর্তমানে ধান চাষ করে আগের মত কষ্ট করতে হয় না।আধুনিকতার যুগে ধান কর্তন করে বাড়িতে আনার পর মেশিনের মাধ্যমে ধান মাড়াই করা যায়।

আগে আমরা ভোরে ঘুম থেকে উঠে কাঠের পিড়া বিছিয়ে একটা একটা ধানে মারতে হইতো এখন ধান আনার পর দেরি করতে হয় না।এতে খরচও কম হয়। ধান কাটার পর তিনি আলু লাগিয়েছেন।

কৃষি অফিসার শাফীয়ার রহমান জানা, এ বছর দেবীগঞ্জে আমনের চাষ হয়েছে ২২ হাজার হেক্টর জমিতে।