স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে ইউএনও’র উদ্যোগ

এম এ বাসেত, তেঁতুলিয়া (পঞ্চগড়) প্রতিনিধি : স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে তেঁতুলিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও)র উদ্যোগে উপজেলার ৭টি ইউনিয়ন পরিষদে দেশের প্রথম ডিজিটাল-ক্যাশলেস সিউপি সেবা uniontax.gov.bd সিস্টেম চালু হয়েছে।

জানা যায় গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ২০০৯ সালে ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণ এবং ২০২৩ সালে স্মার্ট বাংলাদেশ নির্মাণের ঘোষণা দিয়েছেন। এরই অংশ হিসেবে জেলা প্রশাসন পঞ্চগড়ের সহায়তায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার তেঁতুলিয়া সনাতন পদ্ধতিতে প্রদানকৃত সেবাসমূহকে ডিজিটাইজেশনকরণের লক্ষ্যে ডিজিটাল ইউনিয়ন ট্যাক্স ও ক্যাশলেস সিউপি সেবা সিস্টেমের উদ্যোগ গ্রহণ করেন। গত ৮ জানুয়ারী/২০২৩ স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার উদ্যোগ হিসেবে উপজেলা নির্বাহী অফিসার তেঁতুলিয়ার উদ্যোগে দেশের প্রথম তেঁতুলিয়ার ০৭টি ইউনিয়ন পরিষদে ডিজিটাল এবং ক্যাশলেস সিউপি সেবা সিস্টেম চালু উদ্যোগের শুভসূচনা করেন রংপুর বিভাগের বিভাগীয় কমিশনার বিভাগীয় কমিশনার, মোঃ সাবিরুল ইসলাম। ইউনিয়ন পরিষদের সেবাসমূহ ইউনিয়ন পরিষদ সচিব বা হিসাব সহকারী কর্তৃক প্রস্তুত না করেই মনগড়াভাবে যেকোন কম্পিউটারের দোকানে তৈরি করে অফিস স্মারক ব্যতিত সেবা গ্রহিতাকে প্রদানের ফলে, ইউনিয়ন পরিষদ সেবা মূল্য পায় না এবং সেবা গ্রহিতা মানসম্মত সেবা থেকে বঞ্চিত হন।

এছাড়া ইউনিয়ন পরিষদে সেবামূল্য নগদ গ্রহন বা রশিদ ব্যতিত গ্রহণের ফলে সরকারি অর্থের তছরূপ হয়। এরূপ পরিস্থিতিতে ডিজিটাল বাংলাদেশের মুলমন্ত্র বাস্তবায়নের উদ্দেশ্যে ইউনিয়ন পরিষদের সেবা কার্যক্রমকে প্রান্তিক পর্যায়ে জনসাধারণের দোরগোড়ায় স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিতপূর্বক স্বল্প খরচে, স্বল্প সময়ে, সল্প ভ্রমণে বা শূন্য ভ্রমণে এবং হয়রানিমুক্তভাবে গুণগত সেবা প্রদান ও গ্রহণ নিশ্চিত করার জন্য একটি অনলাইন প্লাটফর্ম ‘ডিজিটাল ও ক্যাশলেশ ইউনিয়ন ট্যাক্স ও ইউপি সেবা সিস্টেম’ uniontax.gov.bd তৈরী করা হয়।” বাংলাদেশের প্রথম ইউনিয়ন হিসেবে পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া উপজেলার তিরনইহাট ইউনিয়ন পরিষদে ক্যাশলেস সেবা কার্যক্রম চালু হয়েছে।

এ বিষয়ে এই ডিজিটাল উদ্যোগের প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ তেঁতুলিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার সোহাগ চন্দ্র সাহা বলেন, “বর্তমানে ইউনিয়ন পরিষদ জন্ম ও মৃত্যু সনদ, নাগরিকত্ব সনদ, চারিত্রিক সনদ, ভূমিহীন সনদ, ওয়ারিশান সনদ, উত্তরাধিকার সনদ, অবিবাহিত সনদপত্র, বার্ষিক আয়ের প্রত্যয়ন, একই নামের প্রত্যয়ন অর্থিক অস্বচ্ছলতার প্রত্যয়নসহ বিভিন্ন ধরনের প্রত্যয়নপত্র, ট্রেড লাইসেন্স, অযান্ত্রিক যানবাহনের (রিক্সা, ভ্যানে এবং বাইসাইকেল) লাইসেন্স প্রদানসহ নানাবিধ নাগরিক সেবা প্রদানসহ বিভিন্ন ধরনের কর (হোল্ডিং ট্যাক্স, রপ্তানী কর, পেশাবৃত্তি কর ইত্যাদি) আদায় করে থাকে। সেবাসমূহ সনাতন পদ্ধতিতে প্রদানের ফলে সেবা গ্রহিতার সময়ের অপচয়ের, বারংবার ইউনিয়ন পরিষদে গমণের এবং খরচ বৃদ্ধির মাধ্যমে হয়রানির শিকার হতেন। এই uniontax.gov.bd সফটওয়ারটি চালুর মধ্যে দিয়ে এখন আর হয়রানির কোন সুযোগ নেই।

২নং তিরনই হাট ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ আলমগীর হোসাইন বলেন, এই পদ্ধতি চালুর ফলে ইউনিয়ন পরিষদসমূহের আয় সনাতন পদ্ধতির চেয়ে প্রায় দশ গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। সেবা প্রদানকারী ইউনিয়ন পরিষদ এবং সেবা গ্রহণকারী সাধারণ নাগরিকের নিকট জনপ্রিয় হয়ে উঠছে।

অতিসম্প্রতি উদ্যোগটির প্রধান সমন্বয়কারী জেলা প্রশাসক, পঞ্চগড় মোঃ জহুরুল ইসলাম তেঁতুলিয়া উপজেলায় সরেজমিনে ডিজিটাল ইউনিয়ন ট্যাক্স ও ক্যাশলেস ইউপি সেবা সিস্টেম আওতায় নির্মিত uniontax.gov.bd সফটওয়ারের কার্যক্রম পরিদর্শন করেন। এই সময় তিনি প্রতিবেদকে বলেন “ডিজিটাল ইউনিয়ন ট্যাক্স ও ক্যাশলেস ইউপি সেবা সিস্টেম প্রকল্পটির মূল উদ্দেশ্য সেবা গ্রহিতার সময়, ভ্রমণ, অতিরিক্ত খরচ শূণ্যে নিয়ে আসা এবং গুণগত সেবা প্রদান করা। এই ডিজিটাল প্লাটফরম ব্যবহার করে তেঁতুলিয়া উপজেলার প্রায় ২৫ হাজার সেবা গ্রহিতাকে ইতোমধ্যে এই সেবা গ্রহণ করেছেন। সেবা গ্রহণে তাদের সময়, খরচ ভ্রমণ সাশ্রয় হয়েছে।

একই সংগে ইউনিয়ন পরিষদ কর্তৃক প্রস্তুকৃত সেবার (সনদ, রশিদ) ছজ কোড থাকায় সেবার সঠিকতা ও নির্ভেজলতা যাচাই করা সম্ভব। এই উদ্যোগটি চালুর ফলে হয়রানীমুক্তভাবে সেবা প্রদান সম্ভব হচ্ছে। এছাড়া ডিজিটাল এবং ক্যাশলেস ইউনিয়ন সেবা চালুর পর ডিজিটাল পেমেন্ট গেটওয়ের মাধ্যমে সেবামূল্য পরিশোধ করার ফলে সরাসরি ইউনিয়ন পরিষদের ব্যাংক একাউন্টে জমা হচ্ছে। ফলে, ইউনিয়ন পরিষদের অর্থ তছরুপের কোন সুযোগ নেই। ফলে এই উদ্যোগেটির বড় ধরনের আর্থ সামাজিক প্রভাব রয়েছে।”

ইতোমধ্যে ডিজিটাল এবং ক্যাশলেস ইউনিয়ন সেবা সিস্টেম uniontax.gov.bd টি তেঁতুলিয়া উপজেলার সাতটি ইউনিয়ন থেকে শুরু হয়ে পঞ্চগড় জেলার ৪৩ টি ইউনিয়নে ছড়িয়ে যাবে। তেঁতুলিয়া উপজেলার এ পাইলটিং সম্পন্ন হওয়ার মধ্যে দিয়ে স্থানীয় সরকার, পল্লিউন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগের মাধ্যমে সরকার সারা বাংলাদেশের ইউনিয়ন পরিষদ, পৌরসভা এবং সিটি কর্পোরেশনে তা বাস্তবায়ন করতে পারেন। এসময় উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কাজী মাহমুদুর রহমান ডাবলু, ভাইস-চেয়ারম্যান ইউসুফ আলী, উপজেলা আওয়ামলীগের সভাপতি ইয়াছি আলী মন্ডল সহ সাতটি ইউনিয়নের ইউ’পি চেয়ারম্যানগণ উপস্থিত ছিলেন।