খোলাবার্তা২৪ ডেস্ক : রাজধানীর তুরাগের কামারপাড়া এলাকায় ভাঙারি দোকানে বিস্ফোরণে সংঘটিত অগ্নিকান্ডে রিকশার গ্যারেজে দগ্ধ ৮ জনের মধ্যে ৩ জন মারা গেছেন।

শনিবার দিবাগত রাতে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তারা মারা যান।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতাল পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ বাচচু মিয়া এ খবর নিশ্চিত করে জানান, শনিবার দিবাগত রাত সাড়ে ১১টার দিকে প্রথমে মারা যান মো. শাহ আলম (২৩), রাত ২টার দিকে গ্যারেজ মালিক গাজী মাজহারুল ইসলাম (৪৭) ও মো. নূর হোসেন (৬০) মারা যান।

এ ঘটনায় দগ্ধ অন্যরা হলেন- মো. মিজান (৩৫), মো. আলম মিয়া (২০), মো. মাছুম (৩৫), মো. আল-আমিন (৩০), মো. শাহীন (২৫) ও শফিকুল ইসলাম (৩২)। তারা শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে চিকিৎসাধীন।

শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের আবাসিক সার্জন ডা. এস, এম, আইউব হোসেন জানান, তুরাগ এলাকা থেকে রিকশার গ্যারেজে অগ্নিকান্ডে দগ্ধ হয়ে ৮ জনকে এখানে নিয়ে এসেছিল। তাদের মধ্যে এখন পর্যন্ত তিন জন মারা গেছে।

ডা. এস, এম, আইউব হোসেন জানান, এখনো ৫ জন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। আহতদের সবার শরীরের ৪৫ থেকে ৯৫ শতাংশ দগ্ধ হয়েছে। তাদের চিকিৎসা চলছে। তাদের সকলের অবস্থাও আশঙ্কাজনক।

তুরাগ থানা পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী তুরাগের বাসিন্দা মোহাম্মদ নুরুল ইসলাম জানান, তুরাগের কামারপাড়া- রাজাবাড়ি এলাকায় গাজী মাজহারুল ইসলামের রিকশা গ্যারেজের পাশাপাশি ভাঙারির ব্যবসা রয়েছে। ভাঙারির দোকানে সেন্টের বোতলসহ অন্যান্য বোতল খোলার সময় হঠাৎ বিস্ফোরণ হয়। এতে রিকশার গ্যারেজে আগুন লেগে ৮ জন গুরুতর দগ্ধ হন।

ডিএমপি তুরাগ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. মেহেদী হাসান জানান, শনিবার দুপুরে তুরাগে রাজাবাড়ি (কামারপাড়া) এলাকায় রিকশার গ্যারেজ ও ভাঙারি দোকানে কেমিক্যাল বিস্ফোরণে ৮ জন দগ্ধ হয়। এদের মধ্যে এখন পর্যন্ত তিন জন মারা গেছে।