লুৎফর রহমান, তাড়াশ : “সবুজে ভরে উঠুক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও বাড়ীর আঙ্গিনা” এই শ্লোগান বাস্তবায়নে কাজ করছেন সিরাজগঞ্জের তাড়াশের শাহিনুর ইসলাম শাহিন নামের এক কলেজ অধ্যক্ষ। সাদিয়া নামের নিজস্ব নার্সারী থেকে এলাকার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বিনামুল্যে বিতরন করছেন নানা জাতের ফলদ গাছের চারা।

জানা গেছে, উপজেলার বস্তুল টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ শাহিনুর ইসলাম শাহিন মুলতঃ তাঁর এলাকার স্কুল, কলেজ, মাদ্রসার মত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সবুজে ভরতেই বিনামুল্যে ফলদ গাছের চারা বিতরনের মহতি ও ব্যতিক্রমি উদ্দ্যোগ নিয়েছেন।

আর এরই ধারাবাহিকতায় বৃহস্প্রতিবার বস্তুল টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজ চত্বরে উপজেলার বারুহাস ইউনিয়নের ২১ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আম, জাম,লিচু চালতা, আঙ্গুর,জাম্বুরা, নারিকেল, লেবুসহ মোট ১৬ টি করে ফলদ গাছের চারা আনুষ্ঠানিক ভাবে বিতরণ শুরু করেছেন।

বিতরন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন, তাড়াশ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ লুৎফুন্নাহার লুনা।

এ সময় অন্যান্যের মাঝে উপস্থিত ছিলেন, প্রধান শিক্ষক মুর্শিদা জাহান, ইযাকুব হোসেন, স্বপন কুমার, অশ্বিনী কুমার ভৌমিক, মোঃ শাহজাহান আলী, শ্যামল সরকার, সুপার মাওলানা আব্দুল হামিদ, মহতামিম আব্দুস সামাদ, শিক্ষক শামিউল হক শামিম, হাসানুর রহমানসহ অনেকে।

গাছের চারা নিতে আসা বেশির ভাগই ছিল শিশু শিক্ষার্থী। উন্নত জাতের আম, লেবু, জাম্বুরা চারা পেয়ে খুবই আনন্দিত। এসময় তারা নার্সারী ঘুরে ঘুরে নানান প্রজাতির ফলদ গাছের চারা দেখে এবং আগামীতে পরীক্ষায় ভাল ফলাফল প্রাপ্ত হয়ে নার্সারীতে চাষ করা আরোও উন্নত চারা নেওয়ার প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন।

অধ্যক্ষ মো. শাহিনুর ইসলাম শাহিন জানান, তিনি পেশায় শিক্ষক হলেও সবুজ প্রকৃতির প্রতি তাঁর দূর্বলতা কাজ করে। এ জন্য আড়াই বিঘা জমিতে সাদিযা নামের একটি নার্সারী প্রতিষ্ঠা করেছেন। আর এখানে রয়েছে প্রায় ৫৮ প্রকার উন্নত জাতের ফলদ গাছের চারা। যা বানিজ্যিক ভাবে বিক্রি করা হয়। পাশাপাশি মোট চারার ৩০ ভাগ বিনা মূল্যে ব্যাক্তি, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ দাতব্য প্রতিষ্ঠানে বিনামুল্যে বিতরনও করা হয়। পাশাপাশি এলাকার সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সবুজে ভরে উঠুক এ জন্য তিনি কাজ করছেন।

তিনি আরোও জানিয়েছেন এলাকার যে কোন প্রতিষ্ঠান সবুজে ভরতে যতো গাছ প্রয়োজন তিনি তা বিনামূল্যে তাঁর নার্সারী থেকে সরবরাহ করবেন।

এ প্রসঙ্গে তাড়াশ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ লুৎফুন্নাহার লুনা বলেন, অধ্যক্ষ শাহিনুর ইসলাম শাহিন তাঁর এলাকার সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে খালি জায়গায় গাছ লাগানোর মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা যাতে বিশুদ্ধ অক্সিজেন পায় তার ব্যবস্থা করছেন। পাশাপাশি প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সবুজে ভরে উঠবে এবং শিক্ষা দেশিও ফল খেতে পারবে। তিনি এই মহুতী উদ্দ্যেগের জন্য ওই অধ্যক্ষকে ধন্যবাদ জানান।