মিজানুর রহমান মিজান, রংপুর অফিস : রংপুরের তারাগঞ্জে এক গৃহবধূর গলাকাটা লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

শুক্রবার উপজেলার হাড়িয়ারকুঠি ইউনিয়নের মাদ্রাসাপাড়া গ্রামে নিজ শয়নকক্ষ থেকে গলাকাটা অবস্থায় পুলিশ সালমা আক্তার (৩৫) ওরফে পুটি নামে ওই নারীর লাশ উদ্ধার করে। এ ঘটনায় পুলিশ সালমা আক্তারের স্বামী আব্দুল্লাহকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে।

শুক্রোবার (২৯ অক্টোবর) বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন তারাগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ফারুক আহমেদ।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, আবদুল্লাহর ২য় স্ত্রী সালমা। রাতের খাবার খাওয়া শেষ করে সালমা ও আবদুল্লাহ দুজনে তাদের শয়নকক্ষে ঘুমিয়ে পড়েন। গভীর রাতে আনুমানিক আড়াইটার দিকে আব্দুল্লাহ প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে বাইরে বের হয়ে পরে ফিরে এসে তার স্ত্রীর সালমার গলাকাটা লাশ দেখতে পান।

নিহতের ছোট ভাই ভুট্টু মিয়া বলেন, বেশ কয়েকদিন ধরে বাড়ি-ঘরের জমি আর গরু বিক্রির টাকা নিয়ে আমার আপার সাথে ঝগড়া চলছে দুলাভাইয়ের। আব্দুল্লাহর প্রথম স্ত্রী হোসনেআরার সংসারে আশরাফুল ইসলাম ফকির (৩৫) নামের এক ছেলে সন্তান রয়েছে। আমার সন্দেহ আব্দুল্লাহ ও তার প্রথম স্ত্রীর ছেলে ফকির মিলে আমার বোনকে হত্যা করেছে।

তারাগঞ্জ থানার ওসি ফারুক আহমেদ জানান, পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। হত্যার শিকার গৃহবধূর স্বামীকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। এর সাথে জড়িত যে বা যারা প্রকৃত অপরাধী তাদের শনাক্তের চেষ্টা চলছে। ময়নাতদন্তের জন্য লাশ রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

এদিকে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন রংপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (বি-সার্কেল) সিফাত-ই-রাব্বানী, রংপুর পিবিআইের একটি টিম ও তথ্য উপাত্ত সংগ্রহ করেছে সিআইডি।