খোলাবার্তা২৪ ডেস্ক : রেলস্টেশনে দাঁড়ানো ট্রেন। যাত্রীরা সব গুছিয়ে নিচ্ছেন, কেহ বা জানালার ধারে বসে মোবাইলে কথা বলছেন। ট্রেন ছেড়ে দেবার আগ মুহূর্তে ট্রেনের জানলা দিয়ে হাত গলিয়ে মোবাইল ছিনতাই করতে এসেছিলেন এক যুবক। ধরা পড়ে যান যাত্রীদের হাতে। ইতিমধ্যে ট্রেনও আস্তে আস্তে চলতে শুরু করে।

অভিযুক্তকে ধরে ‘সাজা’ দিলেন যাত্রীরা। কিন্তু যে ‘সাজা’ দিলেন, সেটা অবিশ্বাস্য! অভিযুক্তের হাত জানলার এপার থেকে ধরে টেনে রাখলেন যাত্রীরা। ট্রেনও চলছে। প্রায় ১০ কিলোমিটার ঝুলতে ঝুলতে গেলেন সেই যুবক। সেই ঘটনার একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটারে ভাইরাল হয়ে যায়।

ঘটনাটি ঘটেছে গত বুধবার রাতে ভারতের বিহার রাজ্যের বেগুসরাই এলাকার সাহেবপুর কামাল স্টেশনে।

বেগুসরাই থেকে খাগারিয়া যাচ্ছিল ট্রেনটি। পথে সাহেবপুর কামাল স্টেশনে জানলা দিয়ে হাত গলিয়ে মোবাইল ছিনতাইয়ের চেষ্টা করেন সেই যুবক। তখনই হাত চেপে ধরে ফেলেন যাত্রীরা। চলতে শুরু করে ট্রেন। কিন্তু যুবককে আর মুক্তি দেননি। ভিডিওতে দেখা যায়, সেই ব্যক্তি মিনতি করছেন, তার হাত যেন ছেড়ে না দেওয়া হয়। কারণ ছেড়ে দিলেই পড়ে গিয়ে দুর্ঘটনা নিশ্চিত।

যাত্রীরা অবশ্য ছাড়েননি হাত। সাহেবপুর কামাল স্টেশন থেকে ১০ কিলোমিটার দূরে খাগারিয়া পর্যন্ত এ ভাবেই ঝুলতে ঝুলতে যান যুবক। শেষ পর্যন্ত তাঁকে পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছিল কি না, জানা যায়নি।

বিহারে ট্রেন থেকে এ ধরনের ঘটনা যদিও নতুন নয়। গত জুন মাসে এ রকম একটি ভিডিও ভাইরাল হয়। সেখানে দেখা গিয়েছিল, নদীর ওপর সেতু দিয়ে যাচ্ছিল ট্রেনটি। সেতুতে ঝুলে ছিলেন এক যুবক। ট্রেন যখন সেতুর ওপর দিয়ে যাচ্ছিল, তখন আচমকা দরজায় বসে থাকা এক ব্যক্তির থেকে মোবাইল ছিনিয়ে পালিয়ে যান তিনি। নেটাগরিকরা তাকে ‘নয়া স্পাইডার ম্যান’ আখ্যা দেন।

যদিও এই ভিডিও দেখে নেটাগরিকরা প্রশাসনের সমালোচনা করেছেন। কেউ প্রশ্ন তুলেছেন, এই অমানবিক কাণ্ড কীভাবে রেল পুলিশের নজর এড়িয়ে গেল? কেউ আবার নীতীশ কুমারের সরকারের দিকে আঙুল তুলেছেন। – তথ্যসূত্র: আনন্দবাজার অনলাইন

দেখতে ভিডিওর উপর ক্লিক করুন