নিজস্ব প্রতিবেদক, টাঙ্গাইল : আগামী ১৬ জানুয়ারি টাঙ্গাইল-৭ মির্জাপুর সংসদীয় শুন্য আসনের উপনির্বাচন ব্যপক প্রচার প্রচারনায় ব্যাস্ত সময় কাটাচ্ছে প্রার্থীগণ। ব্যানার পোষ্টারে ছেয়ে গেছে প্রতিটি এলাকা। দিনরাত ভোটারদের দ্বারে দ্বারে যাচ্ছেন প্রার্থীগন। মুল লড়াই হচ্ছে আওয়ামীলীগ ও জাতীয় পার্টির প্রার্থীর মধ্যে।

এ ছাড়া অপর তিন প্রার্থীর প্রচার প্রচারনা এলাকায় তেমন নেই। কেন্দ্রীয়, জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের নেতাকর্মীদের সমন্ময়ে চলছে বাড়িবাড়ি উঠান বৈঠক ও সভা সমাবেশ। প্রথম বারের মত ইভিএমএ পদ্ধতিতে ভোট গ্রহন নিয়ে প্রার্থী ও ভোটারদের নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।

আজ বুধবার (১২ জানুয়ারি) রিটার্নিং অফিসার ও উপজেলা নির্বাচন অফিস সুত্র জানায়, গত ১৬ নভেম্বর স্থানীয় সংসদ সদস্য ও সড়ক পরিবহন এবং সেতু মন্ত্রনালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. একাব্বর হোসেন মারা যান। মারা যাওয়ার পর থেকেই নির্বাচন কমিশন আসনটি শুন্য ঘোষনা করে পুননির্বাচনের জন্য তফসিল ঘোষনা করেন।

তফসিল অনুযায়ী আগামী ১৬ জানুয়ারি টাঙ্গাইল-৭ মির্জাপুর শুন্য আসনের উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে ইভিএম পদ্ধতিতে। উপ-নির্বাচনে ৫ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন। প্রার্থীরা হলেন আওয়ামীলীগের খান আহমেদ শুভ (নৌকা), জাতীয় পার্টির মো. জহিরুল ইসলাম জহির (লাঙ্গল), বাংলাদেশের ওয়ার্কর্স পার্টির মো. গোলাম নওজব পাওয়ার ছৌধরী (হাতুড়ী), স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. নুরুল ইসলাম নুরু (মোটর গাড়ি) এবং বাংলাদেশ কংগ্রেস পার্টির শ্রী মতি রুপা রায় চৌধুরী (ডাব)। মির্জাপুর উপজেলায় একটি পৌরসভাসহ ১৪ ইউনিয়নে মোট ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ৪০ হাজার ৩৭৮ জন।

এদের মধ্যে পুরুষ ভোটার ১ লাখ ৭০ হাজার ৫০১ জন এবং নারী ভোটার ১ লাখ ৬৯ হাজার ৮৭৭ জন। এ বছই প্রথম এ উপজেলায় ১২১ টি ভোট কেন্দ্রে ৭৬৫ কক্ষে ইভিএম মেশিনে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচন সুষ্ঠু, শান্তিপুর্ন ও নিরপেক্ষ ভাবে ভোট গ্রহনের লক্ষে প্রায় তিন হাজার প্রিজাইডিং অফিসার, সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার এবং পুলিং অফিসারদের এ বিষয়ে প্রশিক্ষন দেওয়া হচ্ছে। এছাড়া প্রতিটি ভোট কেন্দ্রে বিপুল সংখ্যক আইন-শৃখলা রক্ষাকারী বাহিনীসহ বিজিবি, র‌্যাব, আনসার ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট নিয়োগ থাকবে।

অপরদিকে শেষ মুহর্তে এসে প্রার্থীগণ ভোটারদের দ্বারে দ্বারে ঘুরে ভোট চাইছেন। জয়ের ব্যাপারে মরিয়া হয়ে উঠেছেন। তবে ভোটাররাও এবার শক্ত অবস্থান নিয়েছেন। তারা যোগ্য ও যারা এলাকার জন্য কাজ করবেন তাকেই নির্বাচিত করবেন বলে জানিয়ছেন। আওয়ামীলীগের প্রার্থী টাঙ্গাইল জেলা আওয়ামী লীগের কার্যকরী সদস্য এবং টাঙ্গাইল চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাট্রিজের সভাপতি ও এফবিসিসিআইযের পরিচালক খান আহমেদ শুভ বলেন, আমি একজন বীর মুক্তিযোদ্ধার সন্তান। জননেত্রী শেখ হাসিনা আমাকে নৌকা প্রতীকে মনোনয়ন দিয়েছেন। উন্নয়নের ধারা অব্যাহৃত রাখতে সাধারন মানুষ ও দলীয় নেতাকর্মীরা আমার পাশে থেকে ১৬ জানুয়ারি বিপুল ভোটের ব্যবধানে নির্বাচিত করবেন বলে আমার বিশআস।

অপর দিকে জাতীয় পার্টির প্রার্থী ও কেন্দ্রীয় কমিটির প্রেসিডিয়াম সদস্য মো. জহিরুল ইসলাম জহির বলেন, এলাকার মানুষ নতুন মুখ চায়। সাধারন জনগন আমার পাশে রয়েছেন। আগামী ১৬ জানুযারি বিপুল ভোটের ব্যবধানে জনগন আমাকে নির্বাচিত করবেন বলে আশা করছেন।

এ বিষয়ে মির্জাপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. হাফিজুর রহমান বলেন, প্রথম বারের মত টাঙ্গাইল-৭ মির্জাপুর উপনির্বাচনে ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট গ্রহন হলেও তাদের সকল প্রকার প্রস্তুতি রয়েছে। ভোট গ্রহন কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে। নির্বাচন সুষ্ঠু করতে প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের সহযোগিতায় প্রতিটি কেন্দ্রে বিপুল সংখ্যক আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী মোতায়েন থাকবে।