গাজীপুর মহানগর প্রতিনিধি : গাজীপুর মহানগরের টঙ্গী প্রেসক্লাবের নামে স্থানীয় ইউনিয়ন ব্যাংকের শাখায় ভূয়া একাউন্ট খুলে সিটি কর্পোরেশনের অনুদানের এক লাখ টাকা তসরুফের গুরুতর অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় প্রেসক্লাবের সাধারণ সদস্যদের মধ্যে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে। ব্যাংকটির শাখা কর্তৃপক্ষ এ ঘটনায় ভুল স্বীকার করে ক্লাবের ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষের কাছে দুঃখ প্রকাশ করেছেন।

প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মাহবুব চৌধুরী জানান, প্রায় দেড় বছর আগে টঙ্গী প্রেসক্লাবের বিলুপ্ত ও মেয়াদোত্তীর্ণ কার্যনির্বাহী কমিটির (২০১৯-২০২১) সাবেক সভাপতি আলী হায়দার ভূয়া পরিচয়ে গত ২৮ ডিসেম্বর প্রেসক্লাবের নামে সিটি করপোরেশনের এক লাখ টাকার অনুদানের একাউন্টপেয়ী চেক (নং-০০১০৫১৪, যার হিসাব নং-এসটিডি-৬১৫, এসআইবিএল) উত্তোলন করে নেন। পরে তিনি গোপনে জাল-জালিয়াতির আশ্রয়ে ইউনিয়ন ব্যাংকের টঙ্গী শাখায় প্রেসক্লাবের নামে ভূয়া একাউন্ট খুলে চেকের টাকা উঠিয়ে নেন।

টঙ্গী প্রেসক্লাবের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ইউসিবি ব্যাংকে টঙ্গী প্রেসক্লাবের নিজস্ব একাউন্ট দীর্ঘ দিন যাবত যথারীতি পরিচালিত হয়ে আসেছে। ক্লাবের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী বর্তমান কমিটি হিসাবটি পরিচালনা করছে। অপরদিকে প্রেসক্লাবের প্রায় ২৮ লাখ টাকা আত্মসাত ও জালজালিয়াতির অভিযোগে গাজীপুর আদালতে আলী হায়দারের বিরুদ্ধে দুটি মামলা চলমান রয়েছে। এ অবস্থায়ও টঙ্গী প্রেসক্লাবের নামে ভূয়া একাউন্ট খুলে টাকা আত্মসাত করায় প্রমাণ হয় তিনি একজন পেশাদার জালিয়াত। টঙ্গী প্রেসক্লাবের নামে ভূয়া একাউন্ট খুলে অর্থ আত্মসাতের ঘটনায় তার বিরুদ্ধে আরেকটি মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

এ ব্যাপারে ইউনিয়ন ব্যাংকের টঙ্গী শাখা ব্যবস্থাপক (ভারপ্রাপ্ত) শাওন আহমেদ বলেন, টঙ্গীতে আমাদের শাখাটি নতুন চালু হয়েছে। এখনো অনেকের সাথে আমাদের পরিচয় হয়ে উঠেনি। আলী হায়দার নিজেকে টঙ্গী প্রেসক্লাবের সভাপতি পরিচয় দিয়ে একাউন্ট খুলতে আসলে ওনার কমিটির মেয়াদ উত্তীর্ণের বিষয়টি জানতে চাইলে, করোনার কারণে কমিটির মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে বলে আমাদেরকে জানানো হয়। তবে প্রয়োজনীয় সব কাগজপত্র ও খোঁজখবর না নিয়ে একাউন্টটি (নং-০৯০১০১০০০২৬৩৩) চালু করা ভুল হয়েছে স্বীকার করে তিনি ক্লাবের বর্তমান ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষের কাছে দুঃখ প্রকাশ করেন।

এ ব্যাপারে গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র (ভারপ্রাপ্ত) মো. আসাদুর রহমান কিরণের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমি কোনো ব্যক্তিকে অনুদান দেইনি, সংগঠনকে দিয়েছি। টঙ্গী প্রেসক্লাবের নামে একাউন্টপেয়ী চেক প্রেসক্লাবের নিজস্ব একাউন্টে জমা না দিয়ে কেউ জালিয়াতির আশ্রয় নিয়ে তসরুফ করে থাকলে আইনগত ব্যবস্থা নিবে প্রেসক্লাব কর্তৃপক্ষ।

এদিকে এ ব্যাপারে গতকাল রোববার বিকেলে মুঠোফোনে আলী হায়দারের বক্তব্য জানতে চাইলে তার ব্যবহৃত মোবাইল নম্বরটি বন্ধ পাওয়া যায়।