ঝালকাঠি প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখছেন মোঃ কামরুল হাসান

কাজী খলিলুর রহমান, ঝালকাঠি প্রতিনিধি : ঝালকাঠির রাজাপুর উপজেলার হাইলাকাঠি ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসার সুপার মোঃ মাহাবুুবুর রহমান ও ম্যানিজিং কমিটির সভাপতি আঃ ছবুর নিয়োগ বাণিজ্য করে চলেছে বলে সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করা হয়েছে।

অভিযোগে বলা হয়, এই মাদ্রাসায় একজন আয়া পদে লোক নিয়োগ করা হবে সে জন্য এই দু’জন মিলে ৭ লাখ টাকা নিয়োগের জন্য ডাক তুলেছেন। ইতিমধ্যে এই গ্রামের মোঃ কামরুল হাসান খান তার স্ত্রী মনসুরা খানমকে এই পদে নিয়োগ দেওয়ার জন্য ৩ লাখ টাকা দিয়েছেন কিন্তু তাতেও রাজি না হয়ে আরও ৩ লাখ টাকা দাবি করেছে। এই পদে একই এলাকার আরও একজন মহিলা প্রার্থী রয়েছে।

এ ছাড়াও এই বিদ্যালয়ে একজন শিক্ষক আনিসুর রহমানের বিরুদ্ধে বিদ্যালয়ের উপবৃত্তি আত্মসাদ করার অভিযোগ আনা হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় ঝালকাঠি প্রেসক্লাবে সাংবাদিক সম্মেলন করে মোঃ কামরুল হাসান খান এই অভিযোগ করেছেন।

তিনি লিখিত বক্তব্যে আরো দাবি করেছেন তার দাদা মৃত মরহুম মোতালেব আলী খান এই মাদ্রাসার জমিদাতা। তারপরও তাদের কাছ থেকে টাকা নিয়ে চাকুরীর নামে হয়রানী করা হচ্ছে। এই মাদ্রাসার সুপার ও সভাপতি মিলে গায়েবী ভোটার করে পূর্নাঙ্গ ম্যানিজিং কমিটি না করে বছরের পর বছর এডহক কমিটি গঠন করে আসছে। এই মাদ্রাসার শিক্ষক আনিসুর রহমান ঢাকার গার্মেন্টেসে কর্মরত এই এলাকার মেয়েদের উপবৃত্তির নাম দিয়ে তিনি ফিফটি-ফিফটি ভাগাভাগি করে নিচ্ছেন বলে দাবি করা হচ্ছে।

সংবাদ সম্মেলনে কামরুল ইসলামের সাথে এলাকাবাসী কাওসার আকন উপস্থিত ছিলেন।