কাজী খলিলুর রহমান, ঝালকাঠি প্রতিনিধি : প্রজনের সার্থে ঝালকাঠির সুগন্ধা ও বিষখালী নদীতে আজ বৃহস্পতিবার মধ্য রাত থেকে টানা ২২ দিন ইলিশ ধরা বন্ধ ঘোষণা করেছে সরকার। সরকারের নির্দেশনা মেনে ঝালকাঠির জেলেরা ইতোমধ্যেই জাল ও নৌকা নদী থেকে উঠিয়ে রাখছেন। অনেকে বাড়ির সামনে নদীর তীরে বেধে রেখেন ইলিশ ধরার নৌকা। মৎস্য বিভাগের পক্ষ থেকে নদীতীরে ও জেলে পল্লী এলাকায় সচেতনতামূলক মাইকিং ও লিফলেট বিতরণ করা হয়েছে।

জেলা মৎস্য বিভাগ জানায়, জেলায় ৬ হাজার ৮০০ তালিকাভুক্ত জেলে রয়েছে। যারা সুগন্ধা ও বিষখালী নদীতে মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করেন। নিষেধাজ্ঞার সময় নদীতে জাল ফেলে মাছ ধরা যাবে না জানিয়ে মাইকিং করেছে মৎস্য বিভাগ। টানা ২২ দিন ইলিশ আহরণ, বিপণন, ক্রয়-বিক্রয়, পরিবহণ, মজুদ ও বিনিময় নিষিদ্ধ থাকবে। এ নির্দেশনা অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে জেল-জরিমানা করা হবে বলেও জানান জেলা মৎস্য কর্মকর্তা রিপন কান্তি ঘোষ।

৬ অক্টোবর থেকে মা ইলিশ সংরক্ষণ কর্মসূচির আওতায় নদীতে ইলিশ মাছ আহরণ বন্ধ করেছে সরকার। টানা ২২ দিন জেলেরা নদীতে মাছ ধরতে নামলে আইন অমান্য করার দায় তাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন ধরনের জাল ও সরঞ্জাম জব্দ করা সহ জেল জরিমানা বিধান রয়েছে।

ঝালকাঠি জেলার বিশখালি, সুগন্ধা ও গাবখান নদীর বিশাল এলাকার জলসীমায় দিন রাত জেলেদের আটকে রাখা কঠিন কাজ। প্রতি বছর জেলা ও ৪টি উপজেলার আওতাধীন নদীতে প্রসাশন মোবাইল কোড পরিচালনা করে নিয়ন্ত্রনে রাখার চেষ্টা করে আসছে। এই সময়ে ৬৮০০নিবন্ধিত জেলেদের বাইরে এক শ্রেনি বহিরাগত যারা এই জেলায় বাসিন্দা এবং তারা বিভিন্ন অঞ্চলে খন্ডকালিন পেশার সাথে জড়িত, তারা এই সময়ে মাছ ধরার জন্য নেীকা ও জাল কিনে মোবাইল কোর্ট এড়িয়ে মাছ আহরন করে। ২২ দিন পর এরা যেখান থেকে এসেছিল সেখানে গিয়ে স্ব-পেশায় নিয়োজিত হয়। এই সকল মেীসুমি জেলেরা গ্রাম এলাকায় অবস্থান করে গ্রামের মধ্যে মাছ বিক্রি করে।

মাছের ব্যবসার সাথে জড়িত এক শ্রেনির ব্যাক্তিরা গ্রাম এলাকায়ই মাছ কেনা বেচার সিন্ডিকেট গড়ে তোলে। মৎস অধিদপ্তর বিভিন্ন এলাকায় জেলেদের নিয়ে সভা সমাবেশ করে এই কর্মসূচির উদ্দেশ্য সম্পর্কে অবহিত করেন এবং কর্মসূচির সফল বাস্তবায়নে তাদের সহযোগিতা কামনা করেন। প্রকৃত জেলেদের অভিযোগ তারা কষ্ট করে ২২ দিন মাছ আহরনে বিরত থাকবেন তবে এই মেীসুমি জেলেরা যাতে অবৈধভাবে অনুপ্রবেশকারিরা কোন রাজনৈতিক ছত্রছায়া না পায় এবং প্রশাসন এদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয় এটাই তাদের দাবি।


জেলেদের নিয়ে সচেতনতা সভা

ইলিশের প্রধান প্রজনন মৌসুমে ইলিশ সংরক্ষণ অভিযান উপলক্ষ্যে নলছিটি উপজেলার সুগন্ধা নদীর মা ইলিশ রক্ষা ও ইলিশ সংরক্ষণে জেলেদের নিয়ে সচেতনতা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বিকালে উপজেলার হদুয়া দরবার শরিফ মাঠে উপজেলা মৎস্য দপ্তরের আয়োজনে এ সভার আয়োজন করা হয়।

সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা প্রশাসক মোঃ জোহর আলি।

উপজেলা চেয়ারম্যান সিদ্দিকুর রহমানের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাইনুল হক, জেলা মৎস্য কর্মকর্তা রিপন কান্তি ঘোষ ও নলছিটি থানা ওসি মোঃ আতাউর রহমান।

মৎস্যজীবীদের সাথে জনসচেতনতা সভা ইউনিয়ন পরিষদের সদস্যবৃন্দ, সুধীজন, গণ্যমান্য ব্যক্তি, ইলেকট্রিক ও প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিক ,মৎস্যজীবীবৃন্দ, জেলা ও উপজেলা মৎস্য কিভাগের কর্মচারীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।