কাজী খলিলুর রহমান, ঝালকাঠি প্রতিনিধি : ঝালকাঠিতে বিস্ফোরক আইনের দুটি মামলায় পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আনিসুর রহমান তাপু ও জেলা যুবদলের আহবায়ক শামীম তালুকদারসহ পাঁচ নেতার জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত।

রোববার বেলা ১২টায় জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. ওয়ালিউল ইসলাম শুনানি শেষে এ আদেশ প্রদান করেন। রাষ্ট্রপক্ষে শুনানিতে অংশ নেন জেলা ও দায়রা জজ আদালতের সরকারি কৌঁসুলি আব্দুল মান্নান রসুল। আসামি পক্ষে শুনানিতে অংশ নেন অ্যাডভোকেট মাহেব হোসেন, মো. হাফিজুর রহমান, মিজানুর রহমান মুবিন ও ফয়সাল খান।

মামলার বিবরণে জানা যায়, ঝালকাঠিতে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের বহনকারী বাসে ককটেল হামলার অভিযোগে বিস্ফোরক আইনে বিএনপির ১৪ নেতাকর্মীর নামে গত বছরের ৭ ডিসেম্বর জেলা যুবলীগের আহŸায়ক রেজাউল করিম জাকির বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেন। মামলায় উচ্চ আদালত থেকে ছয় সপ্তাহের আগাম জামিন নেন। ১৪ আসামির মধ্যে জেলা বিএনপির সদস্যসচিব অ্যাডভোকেট শাহাদাৎ হোসেন, পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আনিসুর রহমান তাপু ও জেলা যুবদলের আহবায়ক শামীম তালুকদারসহ ৮ জন আজ রবিবার ঝালকাঠির জেলা ও দায়রা জজ আদালতে হাজির হয়ে জামিন আবেদন করেন। আদালত পৗর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আনিসুর রহমান তাপু, জেলা যুবদলের আহবায়ক শামীম তালুকদার ও আহবায়ক কমিটির সদস্য সাদ্দাম হোসেনের জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। অন্য পাঁচজনের জামিন মঞ্জুর করেন।

এদিকে রাজাপুর উপজেলায় গত বছরের ২৯ নভেম্বর বিস্ফোরক আইনে উপজেলা বিএনপির সভাপতি অ্যাডভোকেট আবুল কালাম আজাদ ও সাধারণ সম্পাদক নাসিম আকনসহ ২৬ জনের নামে মামলা দায়ের করেন উপজেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ইলিয়াস ফরাজি। এ মামলার আসামিরাও উচ্চ আদালত থেকে ছয় সপ্তাহের জামিন নেয়। এর মধ্যে ২৫ জন আজ রোববার ঝালকাঠির জেলা ও দায়রা জজ আদালতে হাজির হয়ে জামিন চাইলে বিচারক তাদের মধ্যে উপজেলা যুবদলের সভাপতি জাকারিয়া সুমন ও সাধারণ সম্পাদক শহীদ আল মামুন অভিককে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। অন্য ২৩ জনের জামিন মঞ্জুর করেন আদালত।

ঝালকাঠি জেলা বিএনপির সদস্যসচিব অ্যাডভোকেট শাহাদাৎ হোসেন জানান, সরকার ১০ ডিসেম্বর জনতার আন্দোলনকে ভয় পেয়ে দেশের বিভিন্ন স্থানে গায়েবি মামলা দায়ের করে। এরই ধারাবাহিকতায় ঝালকাঠিতেও চারটি মামলা হয়। মিথ্যা এসব মামলা প্রত্যাহার করার দাবি জানান তিনি।