কাজী খলিলুর রহমান, ঝালকাঠি প্রতিনিধি : লাভজনক হওয়ায় ঝালকাঠিতে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে মাল্টা চাষ। জেলায় চলতি বছরে ৫৫ হেক্টর জমিতে মাল্টার আবাদ হয়েছে।

ভিডিও দেখতে এখানে ক্লিক করুন

প্রাথমিক পর্যায়ে হেক্টর প্রতি গড় ফলন ৯ মে.টন যা পরবর্তীতে ১২ থেকে ১৫ মে.টন পর্যন্ত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

লাভজনক হওয়ায় অনেক উদ্যোক্তা মাল্টা চাষে এগিয়ে আসছেন। এর সাথে সাথী ফসল হিসেবে কমলা, লিচু, আম, পেঁপে, লেবু, বাতাবিসহ বিভিন্ন ফলের আবাদ হচ্ছে।

বাগান করার জন্য মাটি ভরাট করতে গিয়ে খনন করা পুকুরে চাষ হচ্ছে মাছ।

এসব ফসল কৃষি অর্র্থনীতি সমৃদ্ধ করতে গুরুত্বপূর্ন ভুমিকা রাখার পাশাপাশি কর্মসংস্থানেরও সুযোগ তৈরি করছে।

ঝালকাঠি সদর উপজেলার বিকনা গ্রামের বাসিন্দা খন্দকার ইকবাল মাহমুদ একটি বেসরকারি কোম্পানিতে চাকুরি করতেন। বেতনের টাকায় সংসার চালানো কষ্টকর হওয়ায় বাড়ী ফিরে কৃষিতে মনোযোগী হন।

তিন একর জমি লিজ নিয়ে চার বছর আগে শুরু করেন মাল্টা চাষ। এতে তার ব্যায় হয় ১২ লাখ টাকা।

প্রথম তিন বছরের ফলনে খরচ উঠে গেছে। এ বছরের ফলন পুরোটাই লাভ যার পারিমাণ ৬ থেকে ৭ লাখ টাকা হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করছেন।

তার বাগানে মাল্টার পাশাপাশি সাথী ফসল হিসেবে কমলা, লিচু, আম, পেঁপে, লেবু, বাতাবিসহ বিভিন্ন ফলের আবাদ হচ্ছে। বাগান করার জন্য মাটি ভরাট করতে গিয়ে খনন করা পুকুরে চাষ করছেন মাছ।

জেলায় এ রকম উদ্যোক্তার সংখ্যা দুই শতাধিক। এসব বাগানে কর্মসংস্থান হয়েছে দুই হাজারেরও বেশি কর্মীর। যারা আগে কাজের অভাবে অনাহারে-অর্ধাহারে দিন কাটাত এখন তারা খেয়ে পরে ভাল আছেন।

কৃষি বিভাগ জানিয়েছে, জেলায় বর্র্তমানে ৫৫ হেক্টর জমিতে মাল্টা আবাদ হচ্ছে। তারা উদ্যোক্তাদের প্রয়োজনিয়ে প্রশিক্ষণ ও পরামর্শ দিচ্ছেন। লাভ জনক হওয়ায় অনেকেই মাল্টা আবাদে ঝুঁকছেন।