কাজী খলিলুর রহমান, ঝালকাঠি প্রতিনিধি : করোনা সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করেছে সরকার। এ সুযোগে ঝালকাঠির রাজাপুর উপজেলায় দু’টি বিদ্যালয়ের খেলার মাঠে ধানচাষ করার অভিযোগ উঠেছে।

স্থানীয় এক যুবলীগ নেতা এবং বিদ্যালয় ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি এ চাষাবাদ করছেন। এতে বিদ্যালয়ের মাঠ ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। শিক্ষার্থীদের খেলাধূলার পরিবেশ থাকবে না বলেও জানিয়েছেন অভিভাবকরা।

বিদ্যালয় মাঠে ধানচাষের কোন সুযোগ নেই, জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলেছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা।

উপজেলার দক্ষিণ রাজাপুর ইউসুফ আলী মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও পাশেই অবস্থিত দক্ষিণ রাজাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। দুইটি বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা একটি মাঠেই খেলাধূলা করে। বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে ম্যানেজ করে মাঠে সদর ইউনিয়ন যুবলীগের আহবায়ক মাইনুল ইসলামের নেতৃত্বে ট্রাক্টর দিয়ে চষে বীজতলার জন্য জমি প্রস্তুত করা হয়েছে।

এ ছাড়া পার্শবর্তী ফিরোজা মজিদ বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের মাঠে ইতোমধ্যেই বীজতলা তৈরি করা হয়েছে। এ মাঠে চাষাবাদ করেছেন বিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি আবদুল মজিদ সিকদার। তাঁর ছেলে এস এম ফিরোজুজ্জামান এ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক।

প্রভাবশালী যুবলীগ নেতা ও বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের ভয়ে প্রতিবাদ করতেও সাহস পাচ্ছে না স্থানীয়রা। ক্যামেরা দেখে প্রতিবাদকারীদের ওপর চড়াও হন কয়েকজন। তবে এতে ক্ষুব্ধ হয়েছেন শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা।

বিদ্যালয়ের মাঠে চাষাবাদ বন্ধ করে শিক্ষার্থীদের খেলাধূলা ও শিক্ষার পরিবেশ ফিরিয়ে আনার দাবি জানিয়েছেন শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও স্থানীয় বাসিন্দারা। পাশাপাশি এ ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের বিচারেরও দাবি জানান তাঁরা।

এ ব্যাপারে ক্যামেরার সামনে কথা বলতে রাজি হননি ওই যুবলীগ নেতা। এদিকে ইউসুফ আলী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জানালেন চাষাবাদের কারণ।

বিদ্যালয়ের মাঠে ধানচাষের সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানালেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা।