বগুড়া অফিস : জ্বালানী তেলের দাম বৃদ্ধির পর বগুড়ায় সকাল থেকে দূরপাল্লা ও অভ্যন্তরীণ রুটে ডিজেল তেল চালিত বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে। হাতে গোনা দুএকটি চললেও তারা বেশী ভাড়া আদায় করেন। ঢাকা-চট্টগ্রাম থেকেও কোনো বাস বগুড়ায় আসেনি।

গ্যাস চালিত বাস সহ অন্যান্য পরিবহন চলাচল করছে স্বাভাবিক গতিতেই।

তবে জেলার পরিবহন মালিক নেতারা জানিয়েছেন, বাস ধর্মঘট ডাকা হয়নি। চালকেরা নিজে থেকে বাস চলাচল বন্ধ রেখেছেন। ভাড়া বৃদ্ধির বিষয়ে কেন্দ্রের নির্দেশনার জন্য অপেক্ষা করছেন তারা।

বগুড়া শহরের চারমাথা আন্তঃজেলা বাস টার্মিনালে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, শুক্রবার রাতে হঠাৎ করে সরকারিভাবে তেলের দাম বাড়ার কারণে বেশিরভাগ চালক বাস বন্ধ রেখেছেন। তেলের নতুন দামে তাদের আয়ের থেকে ব্যয় অনেক বেশি হবে। এ কারণে বাধ্য হয়ে বাস ছাড়ছেন না চালকেরা।

সকাল থেকে বগুড়া-সিরাজগঞ্জ রুটে গাস চালিত মাত্র ১টি বাস ছেড়ে গেছে। তেলের কোন গাড়ি চলাচল করছে না। অন্য রুটগুলোরও একই অবস্থা।

ঠনঠনিয়া আন্তঃজেলা টার্মিনালে খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে কয়েকটি বাস পরিবহন ভাড়া বাড়িয়ে দিয়েছে। এদের একটি হানিফ পরিবহন। ঠনঠনিয়া টার্মিনালের এই পরিবহনের কাউন্টারের এক টিকিট বিক্রেতা জানান, আমাদের মালিকপক্ষ থেকে বাস ভাড়া বাড়াতে বলেছে। এ জন্য ঢাকার রুটের ভাড়া ১০০ টাকা বাড়িয়ে ৫৫০ টাকা নেয়া হচ্ছে।

বাস চলাচল বন্ধের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বাস, মিনিবাস মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম। তিনি জানান, বগুড়া থেকে অধিকাংশ বাস বাইরে যাচ্ছে না। সকাল থেকেও ঢাকা-চট্টগ্রামের ুটের বাস বগুড়ায় আসেনি। আমরা কোনো ধর্মঘটের নির্দেশনা দেইনি।

তিনি বলেন, শুক্রবার সরকারিভাবে তেলের দাম লিটারে প্রায় ৩০ টাকার বেশি বাড়ানো হয়েছে। এখন বগুড়ায় আন্তঃথানা ও জেলার আটটি রুটে প্রায় এক হাজার বাস চলে। শুধু থানা রুটে একটি বাস আপডাউন করতে অন্তত ৩০ লিটার তেল লাগে। অর্থ্যাৎ প্রায় হাজার টাকার ওপরে বাড়তি খরচ হচ্ছে। কিন্তু ওই পরিমাণ আয় বর্তমান ভাড়া থেকে কখনই সম্ভব নয়। এ জন্য তেলের দাম কিছু কমিয়ে ভাড়া সমন্বয় করা হোক।

এদিকে রাস্তায় বাস চলাচল কমে যাওয়ায় ভোগান্তিতে পড়েছেন সাধারন যাত্রী। অধিকাংশ যাত্রী অনিশ্চয়তায় পড়েছেন। অনেকে বাড়তি ভাড়া দিয়ে যাতায়াত করছেন। চারমাথা টার্মিনালে সকাল ৯টার দিকে এসেছেন ুহুল আমিন। যাবেন পাবনায়।

রুহুল বলেন, সকাল থেকে বসে আছি। কিন্তু বাস নেই।

গোবিন্দগঞ্জের ফাঁসিতলা থেকে বাসে বগুড়া এসেছেন খোকন হাসান নামে এক শিক্ষার্থী।

তিনি জানান, বুধবার বাড়িতে গিয়েছিলাম। বাসের ভাড়া ছিল ৩০ টাকা। আজ (শনিবার সকালে সেই ভাড়া নিয়েছে ৫০ টাকা। জিজ্ঞেস করতেই জানালো তেলের দাম বাড়তি।