বন্যা তালুকদার, পাথরঘাটা (বরগুনা) প্রতিনিধি : পাথরঘাটা সদর ইউনিয়নের রুহিতা-টেংরা এলাকার হাজীরখাল এলাকার স্লুইচ বিচ্ছিন্ন হয়ে বেশ কয়েকটি মাছের ঘের ভেসে গেছে। প্রচন্ড বৃষ্টিপাত এবং জোয়ারের পানির তোরে স্লুইজ এলাকার এই ঘেরগুলো তলিয়ে যায় বলে স্থানীয় এমাদুল হক বাদল দফাদার এবং হাফেজ মাসুম সহ স্থানীয় বাসিন্দারা জানান।

এ ছাড়াও উপকূলের বিভিন্ন স্থানের জেলে ও ট্রলার নিখোঁজ থাকলেও বরগুনার পাথরঘাটার জেলেরা রয়েছেন নিরাপদে। দাবী জেলা ট্রলার মালিক সমিতির সভাপতি গোলাম মোস্তফা চৌধুরীর।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৬টায় তার সঙ্গে কথা হয় আমাদের এ প্রতিনিধির। এসময় তিনি বলেন, অন্যান্য এলাকার বেশ কজন জেলে ও ট্রলার নিখোঁজ থাকলেও পাথরঘাটার জেলেরা রয়েছেন নিরাপদে। সমূদ্র উপকূলে দূর্যোগপূর্ন আবহাওয়া এবং তিন নম্বর সতর্ক সংকেত ঘোষনার সঙ্গে সঙ্গেই এখানকার মাছধরা ট্রলার ও জেলেরা নিরাপদ আশ্রয়ে চলে এসেছেন বলে জেলেট্রলার মালিকদের বরাত দিয়ে তিনি এখবর নিশ্চিত করেন।

অপরদিকে পাথরঘাটার একজন গণমাধ্যমকর্মী তারিকুল ইসলাম রাকিব কাজী জানান, একটি ট্রলার নিখোঁজ এবং ওই ট্রলারের একজন জেলে উদ্ধারের ঘটনা ঘটেছে। দুর্যোগপূর্ন বৈরী আবহাওয়ার মধ্যে তিনি সন্ধ্যায় এমন খবর পেয়ে যাত্রা করেছেন তিনি সেই খবর সংগ্রহে। তবে এরিপোর্ট তৈরি কালে বিস্তারিত আর কিছু জানা সম্ভব হয়নি।

এদিকে পাথরঘাটা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুফল চন্দ্র গোলদার বলেন, আমি একটি জরুরী মিটিং নিয়ে ব্যস্ত আছি তবে কোনো বেরিবাধ বিচ্ছিন্ন হওয়ার কিংবা ট্রলার ডুবির খবর পাওয়া যায়নি।

পাথরঘাটা উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোকছেদুল আলম বলেন,এখন পর্যন্ত কোনো ট্রলার ডুবি কিংবা জোয়ারের জলে প্লাবিত হয়েছে এমন খবর আমরা পাইনি।

উপজেলা চেয়ারম্যান মোস্তফা গোলাম কবির বলেন, মাছধরা জেলেদের নিখোঁজ কিংবা ট্রলার ডুবির কোনো খবর নাই তবে জোয়ারের পানি এবং বৃষ্টির পানি বৃদ্ধিতে কোথাও কোথাও ঘের তলিয়ে গেছে এমন কিছু বিচ্ছিন্ন খবর আছে।