তৌহিদ চৌধুরী প্রদীপ, জামালগঞ্জ : সুনামগঞ্জ জেলা পরিষদের ২য় বারের নির্বাচিত চেয়ারম্যান নুরুল হুদা মুকুট কে নাগরিক সংবর্ধনা প্রদান করা হয়েছে। জামালগঞ্জ উপজেলার সাচনা বাজার উচ্চ বিদ্যালয়ের আয়োজনে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বিদ্যালয়ের সভাপতি ও সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি রেজাউল করিম শামীম।

প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ সভাপতি ও সংবর্ধিত জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নুরুল হুদা মুকুট।

বিদ্যালয়ের সিনিয়র সহকারী শিক্ষক অরুপ নারায়ন তালুকদারের সঞ্চালনায় স্বাগত বক্তব্য দেন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক প্রভাকর মজুৃদার।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি সৈয়দ আবুল কাশেম, শান্তিগঞ্জ উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল কালাম, জেলা পরিষদ সদস্য আজাদুল ইসলাম রতন, তাহিরপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অমল কান্তি কর, জামালগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম নবী হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক মোবারক আলী তালুকদার, ফেনারবাঁক ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কাজল চন্দ্র তালুকদার, সাচনা বাজার ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ মাসুক মিয়া, উত্তর ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ হানিফ মিয়া, ভীমখালী ইউপি চেয়ারম্যান আক্তারুজ্জামান তালুকদার প্রমুখ।

অন্যানের মাঝে বক্তব্য রাখেন, বীরমুক্তিযোদ্ধা আঃ রাজ্জাক, উপজেলা আ’লীগ নেতা মোবারক আলী তালুকদার, খন্দকার শহীদুল ইসলাম প্রমুখ।

শেষে জামালগঞ্জের “গীতাঞ্জলি সঙ্গীত পরিষদের শিল্পীরা মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক সঙ্গীত পরিবেশন করেন।

প্রধান অতিথি বলেন, দেশ এগিয়ে যাচ্ছে শেখ হাসিনার নেতৃত্ব। আগামীতেও শেখ হাসিনার নেতৃত্ব দেশ চলবে। যারা দুর্দিনে আওয়ামিলীগ কে ছেড়ে যায়নি তারাই প্রকৃত বঙ্গবন্ধুর সৈনিক। অনেকেই আজ আওয়ামী লীগের পতাকা তলে এসে বড় বড় কথা বলে। অতীতে নির্বাচনে যারা “ফুটবল মার্কা” এবং “আনারস মার্কা” নিয়ে দৌড়ঝাপ করে নৌকার বিরোধিতা করেছে তারা আজ নিজেকে বড় নেতা মনে করে। সুনামগঞ্জের কোন বড়ধরনের অন্দোলনে অতীতে তেমন কাউকে পাওয়া যায়নি। আমরা সে সময় দলকে সুসংঘটিত করেছি।
তিনি বলেন আমার রাজনীতির পেছনে সবছে বেশী ও বড় অবদান তিনি হলেন আমাদের মরহুম নেতা আব্দুস সামাদ আজাদ। তার নির্দেশনায় আমরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে জেলা আওয়ামী লীগের কে সুসংঘটিত করেছিলাম। বর্তমান সভাপতি মতিউর রহমান, আইয়ুব বখত জগলু আমাকে সহযোগিতা করেছেন। তাঁদেরকে শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ রাখতে হবে। বিএনপিকে প্রতিহত করতে হবে, যারা শেখ হাসিনাকে রুখে দিতে চায়। ঐক্যবদ্ধ ভাবে আমরা আগামী দিনে আন্দোলন মোকাবেলা করবো।

তিনি বলেন, আগামীতে আপনারা পাশে থাকলে কোন অপশক্তিকে সুনামগঞ্জের দাঁড়াতে দেবনা। আমাদের কৃতীসন্তান পরিকল্পনা মন্ত্রীর এমএ মান্নান জেলার অনেক উন্নয়ন করছেন। প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে হাওর এলাকার উন্নয়নে উড়াল সেতু, বঙ্গবন্ধু মেডিক্যাল কলেজ, সুপ্রবি সক অনেক কাজ করে আমাদেরকে কৃতজ্ঞতার বন্ধনে অবদ্ধ করেছেন। বিশেষ করে সুনামগঞ্জ-১ নির্বাচনী এলাকায় এমপি মোয়াজ্জেম হোসেন রতন তার দক্ষতা দিয়ে উন্নয়ন তরান্বিত করে যাচ্ছেন।

প্রধান অতিথি আরো বলেন, ওয়ান ইলিভেনের সময় আমাকে অনেক হেনস্তা করা হয়েছে। সব প্রতিকুলতা মোকাবেলা করে মানুষের ভালোবাসা নিয়ে বেঁচে আছি আপনাদের জন্য। বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়তে আগামীতে ঐক্যবদ্ধ হয়ে জননেত্রী শেখ হাসিনাকে আবারো ক্ষমতায় বসিয়ে দেশ গড়ার কাজে অংশ নিতে সবাইকে আহবান জানান।