সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি : সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলার ১০নং দোলার বাজার ইউনিয়নের বসন্তপুর গ্রামে ওরসের নামে নারীদের এনে গান-বাজনা, মাদক অশ্লীলতা বন্ধে লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেছে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে এ সব অসামাজিক কার্যকলাপ বন্ধের জন্য দোলারবাজার ইউনিয়ন পরিষদের ৬নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য ও বসন্তপুর গ্রামের বাসিন্দা মো. ছালিক মিয়া চৌধুরী এলাকাবাসির পক্ষে সুনামগঞ্জের পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমানের নিকট একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়,এলাকার আলেম ওলামাগনসহ স্থানীয় লোকজনের আপত্তিকে উপেক্ষা করে পেশীশক্তির জোরে বসন্তপুর গ্রামের মৃত করিম মিয়ার তিন ছেলে মো. সহিদ মিয়া,হামিদ মিয়াও ছালাম গংরা আগামীকাল শুক্রবার (৩ ডিসেম্বর) ভোর থেকে সারা দিন-রাতব্যাপী ওরসের নামে নারীদের এনে গানবাজনার পাশাপাশি মদ ও গাজাঁর আসর বসানোসহ নানান অসামাজিক কার্যকলাপ পরিচালনার পায়ঁতারা করছেন।

ফলে যেকোন সময় এলাকায় দাঙ্গাঁ হাঙ্গামাসহ অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনের বাহিরে চলে যাওয়ার আশংঙ্কা রয়েছে। এছাড়াও গত ২৪ নভেম্বর এলাকাবাসির পক্ষে ছাতক উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে আরো একটি লিখিত অভিযোগ দেয়া হয়েছিল।

কিন্তু এ নিয়ে প্রশাসনের পক্ষ থেকে তেমন কোন উদ্যোগ পরিলক্ষিত না হওয়াতে এলাকায় চরম উত্তেজনা রিবাজ করছে। গতবছর ও বসন্তপুর গ্রামে একই সময়ে ওরসের নামে গানবাজনা ও মদ অশ্লীলতার আসরকে কেন্দ্র করে দাঙ্গাঁ হাঙ্গামার ঘটনার ঘটলে খবর পেয়ে পুলিশ সদস্যরা ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনেন।

এ ব্যাপারে বসন্তপুর গ্রামের ওরসের আয়োজক মো. সহিদ মিয়ার সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে আগামীকাল শুক্রবারের ওরসের ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান,এখানে কোন ধরনের দাঙ্গা হাঙ্গামার কোন শংঙ্কা নেই।

এ ব্যাপারে দোলার বাজার ইউনিয়ন পরিষদের ৬নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য ও বসন্তপুর গ্রামের বাসিন্দা মো. ছালিক মিয়া চৌধুরী বলেন,আমার বসন্তপুর গ্রামের সহিদ মিয়া,হামিদ মিয়া ও ছালাম গংরা এলাকার আলেম ওলামাও স্থানীয় মানুষজনের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে আগামীকাল শুক্রবার দিনরাত ওরসের নামে নারীদের এনে গানবাজনার আসর, মদ ও গাজাঁ সেবনের যে পরিবেশ পরিস্থিতি সৃষ্টি করতে যাচ্ছেন তা ইসলাম সমর্থন করে না কোন ধর্মপ্রাণ মানুষ তা মেনে নিতে পারেনা। তাই এই ওরসকে কেন্দ্র করে যেকোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটতে পারে। এই ওরসের নামে অসামাজিক কার্যকলাপ বন্ধের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও সুনামগঞ্জের পুলিশ সুপারের নিকট জোর দাবী জানান।

এ ব্যাপারে সুনামগঞ্জের পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান অভিযোগ পাওয়ার সতত্যা নিশ্চিত করে জানান,কেহ ওরসের নামে কোন ধরনের অসামাজিক কার্যকলাপ করতে চাইলে তা প্রতিহত করা হবে এবং দোষীদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।