সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি : সুনামগঞ্জের তাহিরপুরে ভারতীয় চোরাচালানের কয়লার চালান আটকের পর উল্টো বিপাকে পড়েছেন টাঙ্গুয়ার হাওরের নিরাপত্তা কাজে নিয়োজিত থাকা আনসার সদস্যরা।

বুধবার ভোররাত থেকে স্থানীয় এক আওয়ামী লীগ নেতার ছেলে আবুল বাশার খান নয়ন ভারতীয় চোরাচালানের কয়লার চালানসহ আটক নৌকা ছাড়িয়ে নিতে আনসার এপিসিকে মোবাইল ফোনে নানা হুমকি ধামকি গালিগালাজ করেছে বলেও অভিযোগ তুলেছেন আনসার সদস্যরা।

বুধবার ভোররাত সাড়ে ৫টায় বিনা শুল্কে ভারত থেকে চোরাচালানের মাধ্যমে নিয়ে আসা একটি কয়লার চালান নৌকাসহ আটক করেন নৌপথে টাঙ্গুয়ার হাওরের নিরাপত্তা কাজে নিয়োজিত থাকা রামসিংহপুর আনসার ক্যাম্পের এপিসি আবু নাসির সাইফুল্লাহসহ আনসার টহল দল। এর পরপরই ঘটতে থাকে নানা বিপত্তি।

 

টাঙ্গুয়ার হাওরের রামসিংহপুর আনসার ক্যাম্পের এপিসি আবু নাসির সাইফুল্লাহ অভিযোগ করেন জানান, তাৎক্ষণিকভাবে তাহিরপুর উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আবুল হোসেন খানের ছেলে আবুল বাশার খান নয়ন পরিচয় দিয়ে আমার ব্যাক্তিগত মোবাইল ফোনে কল করে প্রথমে কয়লার চালানসহ আটক নৌকা ছেড়ে দিতে চাপ সৃষ্টি করার পর আমাকে চর থাপ্পর মেরে দাত ফেলে দেওয়া, অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করা সহ আনসার সদস্যদের দেখে নেয়ার হুমকি প্রদান করেন।

এরপর বিষয়টি আমি উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মহোদয় ও তাহিরপুর থানার ওসি মহোদয়কে অবহিত করি।

তিনি আরো বলেন, ভারতীয় চোরাচালানের কয়লা হওয়ায় নৌকায় কোন বৈধ মিনিপাস বা কয়লা আমদানিকারক গ্রপের কোন চালান পত্রই ছিল না। এরপর কয়লা বোঝাই নৌকায় থাকা মাঝিসহ অন্যরা প্রত্যক্ষদর্শীদের জানিয়েছেন এ কয়লার চালান আবুল হোসেন খানের ছেলে আবুল বাশার খান নয়নসহ তার কয়েকজন সহযোগির। এক পর্যায়ে মাঝিসহ নৌকায় থাকা অন্যরা কৌশলে কয়লা বোঝাই নৌকা ফেলে রেখে পালিয়ে যান।

দুপুরের পর তাহিরপুর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে সেখান থেকে আনসার এপিসি, আনসার সদস্যদেরসহ কয়লা বোঝাই নৌকা থানায় নিয়ে আসেন রাতে।

বুধবার রাতে তাহিরপুর উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান বালিয়াঘাট গ্রামের বাসিন্দা আবুল হোসেন খানের ছেলে আবুল বাশার খান নয়নের নিকট ভারতীয় চোরাচালানের কয়লা বোঝাই নৌকা আটক ও আনসার সদস্যকে হুমকি-ধামকির প্রসঙ্গে জানতে চাইলে অভিযোগ অস্বীকার করে তিনি জানান, আমি আনসার সদস্যকে হুমকি দেইনি, আটককৃত চোরাচালানের কয়লা আমার নয়।

একটি ভাইরাল হওয়া ভিডিও ফুটেজে বুধবার ভোররাতে আটককৃত চোরাচালানের কয়লার চালানটি আবুল বাশার খান নয়ন ও তার অন্য সহযোগিদের নৌকা মাঝির এমন বক্তব্যের কোনো সদুত্তর না দিয়ে নয়ন বলেন, এটি জোরপূর্বক নৌকার মাঝির নিকট থেকে আমাকে ফাঁসানোর জন্য বক্তব্য নিয়েছে আনসাররা।

বুধবার রাতে তাহিরপুর থানার ওসি মো. আব্দুল লতিফ তরফদার জানান, বিনাশুল্কে চোরাচালানের মাধ্যমে ভারত থেকে নিয়ে আসা ২৮৪০ কেজি (৮২ বস্তা) কয়লা ও কয়লা পরিবাহি ইঞ্জিনযুক্ত একটি কাঠ বডি নৌকা জব্দ করা হয়েছে। চোরাচালানের কয়লা বোঝাই নৌকা আটকের কারণে আনসার সদস্যকে হুমকি-ধামকি ও গালিগালাজ করা ও কয়লা চোরাচালানে জড়িত আবুল বাশার খান নয়নসহ তার অপর সহযোগিদের ব্যাপারেও আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান ওসি।