সেলিম রানা, চরফ্যাশন প্রতিনিধি : ভোলার চরফ্যাশন উপজেলার কাশেম বাজার লঞ্চঘাট সংলগ্ন তেতুলিয়া নদী থেকে প্রায় ২ হাজার ৫শত মিটার অবৈধ বেহুন্দি জাল জব্দ করা হয়েছে। পরে এসব জাল পুড়ে ধ্বংস করা হয়।

গত বুধবার (১০ আগস্ট) দিনব্যাপী মৎস‍্য অধিদপ্তর (ভোলা), সিনিয়র উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তার কার্যালয় (চরফ্যাসন), বাংলাদেশ পুলিশ ও বাংলাদেশ কোস্টগার্ড এর যৌথ অভিযানে এই অবৈধ বেহুন্দি জাল জব্দ করে পুড়ে ধ্বংস করা হয়। তবে এই ঘটনায় কাউকে আটক করা যায়নি।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মোল্লা এমদাদুল্লাহ, সিনিয়র উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মারুফ হোসেন মিনার, মেরিন ফিশারিজ অফিসার সাইদুর রহমান,

বাংলাদেশ কোষ্টগার্ড চরমানিকা ষ্টেশন কন্টিনজেন্ট কমান্ডার মো. অলিউল্লাহ, সহকারী মৎস্য কর্মকর্তা মাহাবুবুল আলম।

জানা যায়, জেলেদের মধ্যে একটি চক্র অল্প সময় ও কম পরিশ্রমে বেশি মাছ শিকারের লোভে এসব অবৈধ বেহুন্দি জাল ব্যবহার করে থাকে। তারা জানে যে, বেহুন্দি জালের ব্যবহার সারাবছরই নিষিদ্ধ। এরপরেও প্রশাসনের দৃষ্টি ফাঁকি দিয়ে মাছ শিকারের চেষ্টা করছে তারা। বেহুন্দি জালের স্থানীয় বেশ কিছু নাম রয়েছে।

এরমধ্যে বাঁধা জাল, পেকুয়া জাল, বিঙ্গি জাল, গাড়া জাল, চিংড়ি পোনা ধরা জাল, খুঁটি বা খোটা জাল, টং জাল ও বিন্দি জাল হিসেবেও পরিচিত।

এ বিষয়ে সিনিয়র উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মারুফ হোসেন মিনার বলেন, এই বেহুন্দি জাতের জাল উপকূলীয় এলাকা তথা গোটা দক্ষিণাঞ্চলে মৎস্য সম্পদের বেশি ক্ষতি করে থাকে। এসব জালের কারণে শুধু মাছের পোনাই নয় ডিমও নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। এসব জাল জব্দ করে ধ্বংস করতে আমাদের অভিযান সব সময় চলমান থাকবে বলেও জানান তিনি।