চট্টগ্রাম ব্যুরো : চট্টগ্রামের রাউজানে এক প্রবাসীর বাড়িতে ডাকাতির সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে ৮ ডাকাতকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। এ সময় ডাকাতদের নিকট থেকে লুণ্ঠিত ৪৬ ভরি স্বর্ণালংকার, কয়েন ও ডাকাতি হওয়া স্বর্ণ বিক্রির ৩০ লক্ষাধিক টাকা উদ্ধার করেছে র‌্যাব-৭, চট্টগ্রাম।

মঙ্গলবার এক বিজ্ঞপ্তিতে র‌্যাব জানায়, রাউজান সুলতানপাড়া হাজী মোহাম্মদ আলী চৌধুরী বাড়ির প্রবাসী মোহাম্মদ আলী চৌধুরীর পুত্র মোহাম্মদ সরোয়ার চৌধুরী (৩৫) গত ২৭ অক্টোবর দুবাই হতে দেশে আসেন। ২৮ অক্টোবর দিবাগত রাতে তিনি তার মামাতো বোনের মেয়ের বিয়ের অনুষ্ঠান উপলক্ষে পরিবারের লোকজনসহ মামার বাড়িতে যান। এ সময় ঘরে তার বৃদ্ধ বাবা ছাড়া আর কোনো মানুষ ছিল না। এই সুযোগে গভীর রাতে একদল ডাকাত সরোয়ার চৌধুরীর পাকা ঘরের পিছনে জানালার গ্রিল কেটে ঘরে প্রবেশ করে।

ডাকাতরা তার বাবাকে কম্বল দিয়ে চেপে ধরে চোখ-মুখ ও হাত-পা বেঁধে গলায় চাকু ধরে আলমারির চাবি নিয়ে নেয়। ডাকাত দলের সদস্যরা আলমারিতে রক্ষিত সরোয়ারের স্ত্রী, মা, বোন ও অপরাপর আত্মীয়-স্বজনের আমানত হিসেবে রাখা অলংকারসহ সর্বমোট ৭০ ভরি স্বর্ণালংকার লুট করে। ডাকাত দল ঘরে রাখা নগদ ৫ লক্ষ টাকা, ৫টি মোবাইল সেট এবং একটি স্যামসাং ব্রান্ডের ট্যাব লুট করে।

র‌্যাব জানায়, গত ৯ নভেম্বর সরোয়ার চৌধুরী বাদী হয়ে উক্ত দুর্ধর্ষ ডাকাতির ঘটনায় রাউজান থানায় একটি মামলা দয়ের করেন। লোমহর্ষক এ ডাকাতির আসামি গ্রেপ্তার ও মূল রহস্য উদঘাটনের জন্য সরোয়ার চৌধুরী র‌্যাব-৭, চট্টগ্রামের অধিনায়ক বরাবরে একটি লিখিত আবেদনও করেন।

এর প্রেক্ষিতে র‌্যাব তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার ও গোয়েন্দা নজরদারি শুরু করে। এরই ধারাবাহিকতায় বিশেষ সংবাদের ভিত্তিতে গত ২১ নভেম্বর বিকেলে র‌্যাবের একটি আভিযানিক দল রাউজান দক্ষিণ গহিরা শিবের ঘাট এলাকার একটি বাসা হতে আসামি মুসাকে গ্রেপ্তার করে এবং তার হেফাজত থেকে ডাকাতি হওয়া নগদ ৫ লক্ষ টাকা এবং স্বর্ণালংকার বিক্রয়ের ১ লক্ষ ৯৯ হাজার টাকাসহ ৬ লক্ষ ৯৯ হাজার টাকা উদ্ধার করে।

ধৃত আসামি মুসার দেয়া তথ্য মতে ডাকাত দলের সদস্য সাইদুল ইসলাম প্রকাশ সাইফুলকে একই দিনে গহিরার উত্তর-পূর্ব কোতোয়ালী ঘোনা দলইনগরস্থ একটি বাড়ি হতে গ্রেপ্তার করা হয়। পরবর্তীতে তাদের দেয়া তথ্যমতে রাউজান ও হাটহাজারী থানা এলাকার বিভিন্ন স্থান হতে ডাকাত দলের অন্য সদস্য খোরশেদুল আলম (২৮), সাজ্জাদ হোসেন (২৭), বাপ্পি (২৬), সজল শীল (২৭), ইদ্রিস প্রকাশ কাজল (৩৪)কে গ্রেপ্তার করা হয়। এবং ডাকাতি কাজে ব্যবহৃত গ্রিলকার্টার, ছোরা, টর্চ লাইটসহ ডাকাতি হওয়া ৪৬ ভরি স্বর্ণালংকার ও কয়েন এবং স্বর্ণের বিক্রয়লব্দ মোট ৩০ লক্ষ ১ হাজার ৬০০ টাকা উদ্ধার করে। র‌্যাব ডাকাতির মালামাল ক্রেতা বিপ্লব চন্দ্র সাহা (৩৮)কেও তার জুয়েলার্সের দোকান থেকে গ্রেপ্তার করে।

পরবর্তীতে উপস্থিত সাক্ষীদের সম্মুখে আটক আসামিরা উল্লিখিত ঘটনার সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে। তাদের বিরুদ্ধে পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সংশ্লিষ্ট থানায় হস্তান্তর করা হয়।