এম. মনিরুজ্জামান, রাজবাড়ী প্রতিনিধি : রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে জমাজমা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে হামলার ঘটনায় মান্নান ফকির ওরফে মান্দু (৬৫) নামে এক ব্যাক্তি চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয়েছে। তিনি গোয়ালন্দ উপজেলার ছোটভাকলা ইউনিয়নের বিষ্ণুপুর গ্রামের সাহাজ উদ্দিন ফকিরের ছেলে।

এ সময় হামিদা, রাজা ও মিরাজ নামের তিনজন আহত হয়। এ ঘটনায় পুলিশ ঝুমঝুম বেগম, ঋতু আক্তার ও সাইদুল নামের ৩ জনকে আটক করেছে।

স্থানীয় ও নিহতের পরিবারের সদস্যরা জানিয়েছেন, শুক্রবার সকালে গোয়ালন্দ উপজেলার ছোট ভাকলা ইউনিয়নের বিষ্ণুপুর গ্রামের মান্নান ফকিরের বাড়ীর পাশে তার শালা আবেদ আলীর বিক্রিত জমি ১১.৫০ শতাংশ সীমানা নির্ধারণের জন্য মাপঝোপের নির্ধারিত দিন ছিল।

এ জন্য ছোট ভাকলা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আমজাদ হোসেন, মেম্বার সালাম ও স্থানীয় আমিন ওহাবসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিদের উপস্থিতিতে সীমানা নির্ধারণ করা হয়।

সবাই চলে যাওয়ার পর মান্নান তার সীমানায় পিলার বসাতে গেলে আবেদ আলীর নিকট থেকে ক্রয়কৃত জমির মালিক নুরাল মেম্বারের ছেলে শামীম বাধা প্রদান করে।

দেড়টার দিকে শামীম, মোস্তফা, মোমিন, মইন, স্বপনসহ ৬-৭ জন ঘটনাস্থলে এসে মান্নানের মাথায় দা দিয়ে আঘাত করে জখম করে। মান্নানকে বাঁচানোর উদ্দেশ্যে তার মেয়ে হামিদা বেগম ও ছেলে মিরাজ এগিয়ে আসলে মারপটি করে গুরুতর জখম করে।

তাদেরকে গোয়ালন্দ হাসপাতালে নিয়ে গেলে জরুরী বিভাগে কর্তব্যরত চিকিৎসক উন্নত চিকিৎসার জন্য ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করে। ফরিদপুরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বিকাল ৪টার দিকে মান্নান ফকিরের মৃত্যু হয়।

গোয়ালন্দ ঘাট থানার ওসি স্বপন কুমার মজুমদার বলেন, বিষয়টি নিয়ে আসামী গ্রেফতার ও আইনী প্রক্রিয়া চলমান আছে।