সারী-গোয়াইনঘাট সড়কে ঝুঁকি নিয়ে চলছে যানবাহন। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও ঘরবাড়ি বানের পানিতে তলিয়ে গেছে। ছবি: প্রতিনিধি        

মনজুর আহমদ, গোয়াইনঘাট : গত গত কযেক দিনের টানা বর্ষণ উজান থেকে নেমে আসা পানিতে তলিয়ে গিয়েছিল গোয়াইনঘাট উপজেলা ৷ তবে ১৪ মে শনিবার দুপুর থেকে পানি কমতে শুরু করেছিল। শনিবার দিবাগত রাত থেকে সারি ও ডাউকি নদী দিয়ে নেমে আসা পানিতে গোয়াইনঘাট উপজেলা সর্বত্র তলিয়ে গেছে।

বিপদসীমার উপরে সারি ও ডাউকি নদীর পানি প্রবাহিত হচ্ছে। এতে করে লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দী রয়েছেন।

সিলেট শহরের সাথে উপজেলা সদরের যোগাযোগ সম্পন্ন বিচ্ছিন্ন রয়েছে। এ ছাড়া উপজেলা সদরের সাথে ১২টি ইউনিয়নের প্রায় ৪ লাখ জনগোষ্ঠীর যোগাযোগ ব্যবস্থা ব্যাহত রয়েছে। হাজার হাজার ঘর বাড়িতে পানি উঠেছে।

গ্রামীণ রাস্তা-ঘাট বানের পানিতে তলিয়ে গেছে। শতকরা ৮০% শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পানি উঠেছে, এতে পাঠদান ব্যাহত হচ্ছে। অনেক হাট-বাজারে পানি উঠায়, হাঠবাজার অচলাবস্থা দেখা দিয়েছে।

বোরো ও আউশের বীজতলা এবং বোনা আমনের ব্যাপক ক্ষতির আশংকা রয়েছে।

এদিকে কৃষকেরা গবাদি পশু নিয়ে রয়েছেন বিপাকে। চরম গো-খাদ্যের অভাব দেখা দিয়েছে।

অপরদিকে বন্যার কারনে শ্রমিকরা কোন কাজে যেতে না পারায় শ্রমিকরা পরিবার পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছেন।

এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে এবং লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দি রয়েছেন।