নিহত ময়না মিয়া        

মনজুর আহমদ, গোয়াইনঘাট : গত ২৬ জুলাই (মঙ্গলবার) সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার তোয়াকুল ইউনিয়নের ফুলতৈলছগাম গ্রামে খাষ ভূমিতে ফিশারি নির্মাণের জেরধরে দুপক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এতে ময়না মিয়াসহ উভয় পক্ষে ২৫ জন আহত হন।

আহতদের মধ্যে সকলেই চিকিৎসা নিয়ে বাড়িতে চলে আসেন। এ সংঘর্ষের ঘটনায় ছফুর মিয়া বাদী হয়ে ওয়ার্ড মেম্বার মর্তুজ আলীকে প্রধান আসামি করে ২২ জনের নাম উল্লেখ করে একটি মামলা গোয়াইনঘাট থানায় দায়ের করেন যাহার নাম্বার নং ২০। উভয় পক্ষের মধ্যে বিষয়টি নিষ্পত্তির জন্য আজ ৬ আগষ্ট (শনিবার) বৈঠকে বসার কথা ছিল।

এরই মধ্যে ময়না মিয়া চিকিৎসা নিয়ে বাড়ীতে আসার পর শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাকে পুনরায় চিকিৎসার জন্য সিলেটে এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন তার আত্মীয় সজনেরা। সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ICU তে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৫ আগস্ট (শুক্রবার) দিবাগত রাত ১২টায় তিনি মৃত্যুবরণ করেন। ময়না মিয়া মৃত্যুকালে ৯ ছেলে, ২ মেয়েসহ অসংখ্য গুনগ্রাহী রেখে গেছেন। এদিকে ময়না মিয়ার মৃত্যুর খবরের পুরো ফুলতৈলছ গ্রামজুড়ে শোকের ছায়া নেমে আসে।

এ ব্যাপরে গোয়াইনঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ কে এম নজরুল ইসলাম বলেন, ফুলতৈলছ গ্রামে দু’পক্ষের সংঘর্ষের ঘটনায় আহতরা চিকিৎসা নিয়ে সবাই বাড়িতে ফিরে ছিলেন। তার পারিবারিক সূত্রে জানা যায় পরে ময়না মিয়াকে

চিকিৎসার জন্য সিলেটে এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন তার আত্মীয় স্বজনেরা। সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ICU তে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারাযান। বর্তমানে ময়না মিয়ার সুরতহাল রিপোর্ট তৈরী করে ময়নাতদন্ত করা হবে এবং পরবর্তীতে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।