বিশেষ প্রতিনিধি : কুলাউড়া উপজেলার জয়চন্ডী ইউনিয়নে কলা খাওয়ানোর প্রলোভন দেখিয়ে ১৩ বছর বয়সী এক বুদ্ধি প্রতিবন্ধী শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। বৃহস্পতিবার ১৮ ফেব্রুয়ারি রাতে কুলাউড়া থানায় শিশুটির মা বাদী হয়ে প্রতিবেশী এক যুবককে আসামি করে মামলা করেছেন।

পুলিশ ও মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার জয়চন্ডী ইউনিয়নের বাসিন্দা শিশুটির মা (৩৫) এলাকার বিভিন্ন বাড়িতে গৃহপরিচারিকার কাজ করেন। বাবা নেই। ১১ ফেব্রুয়ারি সকালে প্রতিদিনের মতো শিশুটিকে ঘরে একা রেখে মা কাজে চলে যান। ওইদিন একপর্যায়ে কলা খাওয়ানোর লোভ দেখিয়ে পাশের দেয়ালঘেরা একটি নির্জন স্থানে নিয়ে হৃদয় মিয়া (১৯) নামক প্রতিবেশি শিশুটিকে ধর্ষণ করে। ধর্ষণের শিকার শিশুটি পরে শিশুটি বাড়িতে ফিরে যায়। তবে মাকে এ ব্যাপারে কিছু বলেনি।

ওই দিন রাতে ব্যথায় শিশুটি কাতরাতে থাকে। গায়ে জ্বরও ওঠে। এ অবস্থায় পরদিন ১২ ফেব্রুয়ারি তাকে স্থানীয় এক পল্লীচিকিৎসকের কাছে নিয়ে যান তার মা। চিকিৎসক ব্যথানাশক কিছু ওষুধ দেন। এরপরও ব্যথা কমছিল না।
এ দিকে গত বুধবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) শিশুটি কেঁদে কেঁদে মাকে ঘটনাটি জানায়। এ কথা শুনে তার মা এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিদের কাছে এ ব্যাপারে বিচার প্রার্থী হন।

খবর পেয়ে পুলিশ গত বুধবার রাতে এলাকায় অভিযান চালায়। তবে হৃদয়কে পাওয়া যায়নি। বৃহস্পতিবার রাত ১০টায় হৃদয়কে আসামি করে মামলা করেন শিশুটির মা।

কুলাউড়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আমিনুল ইসলাম জানান, আসামি পলাতক। গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। নির্যাতনের শিকার শিশুটির স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য মৌলভীবাজার জেলা সদরের হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।