খোলাবার্তা২৪ ডেস্ক : কান আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের বাজার মার্শে দ্যু ফিল্মের তথ্যচিত্র বিভাগের ‘ডকস ইন প্রগ্রেস’-এ পুরস্কার জিতেছে বাংলাদেশের তথ্যচিত্র ‘মুন্নি’৷ বিভাগটির ‘থিঙ্ক-ফিল্ম ইমপেক্ট অ্যাওয়ার্ড’ পেয়েছে তথ্যচিত্রটি৷

মঙ্গলবার স্থানীয় সময় সাড়ে পাঁচটায় ‘কানডকস’-এর ডকস ইন প্রগ্রেস (যেসব ছবির কাজ পুরোপুরি শেষ হয়নি) বিভাগের পুরস্কার ঘোষণা শুরু হয়৷ পালে দ্য ফেস্টিভালের মার্শে দ্যু সেকশনে অনুষ্ঠিত হয় পুরস্কার ঘোষণা অনুষ্ঠানটি৷ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম জুম-এর মাধ্যমে যোগ দেন উৎসবে উপস্থিত হতে না পারা নির্মাতা ও প্রযোজকরা৷

পুরস্কার ঘোষণার পর প্রতিক্রিয়ায় চলচ্চিত্রের পরিচালক তাহরিমা খান বলেন, ‘‘এখনো ছবিটির সম্পাদনা চলছে৷ সম্পাদনা শেষ হলে তা সবার জন্য প্রদর্শনী করা হবে৷ তখন দেখা যাবে ‘রিয়াল ইমপ্যাক্ট’৷’’

‘মুন্নি’র পরিচালক তাহরিমা খান

তাহরিমা খান বলেন, ‘‘এটা একটা বড় অর্জন৷ আমি অনেক অনুপ্রাণিত৷’’

এ বছর কানে ৩২টি ডকুমেন্টারি প্রজেক্ট জমা পড়েছে কানডকসে৷ সেখান থেকে ৬টি পুরস্কারটি জিতেছে৷ এই তথ্যচিত্রের গল্পটি টাঙ্গাইলে একদল কিশোরী ফুটবল খেলোযাড় ও তাদের প্রশিক্ষক কামরুন্নাহার মুন্নিকে নিয়ে৷

‘‘আমরা যেভাবে একটি নারী ফুটবল দলকে দেখি, তার বাইরে গিয়ে ছবিটিতে আরো গভীর কিছু দেখানোর চেষ্টা করেছি৷ চেষ্টা করেছি, তাদের ভেতরের কথাগুলো, সংগ্রামের কথাগুলো তুলে ধরার জন্য৷ তাদের স্বপ্নগুলোকে ছুঁয়ে দেখার জন্য,’’ বলেন তাহরিমা৷

প্রশিক্ষক মুন্নি এই কিশোরীদের বাল্যবিবাহের অভিশাপ থেকে মুক্তির পথ তৈরিতে সহযোগিতা করছেন৷ সেই গল্পই উঠে আসবে তথ্যচিত্রটিতে৷ ‘‘এই কিশোরীরা যেন শুধু খেলার মাঠেই নয়, জীবনের সংগ্রামে জিততে পারে, সেই গল্পই দেখানো হবে এই চলচ্চিত্রে,’’ যোগ করেন তাহরিমা৷ আগামী জানুয়ারির দিকে সম্পাদনার কাজ শেষ হবে বলে জানান তিনি৷

এই পুরস্কারের অধীনে তাহরিমা কৌশলগত পরামর্শ ও প্রশিক্ষণ পাবেন৷ এ বিষয়ে ছবির প্রযোজক আবু শাহেদ ইমন বলেন, ‘‘ডকুমেন্টারি শুধু বানানোই নয়, সমাজে তা কতটা ইমপ্যাক্ট বা প্রভাব তৈরি করার ক্ষমতা রাখে, আজকাল তা-ও বিবেচনা করা হয়৷ সে বিবেচনায় নারীর ক্ষমতায়ন ও সামাজিক বৈষম্য রোধে মুন্নি তথ্যচিত্র গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা রাখবে বলে আমার বিশ্বাস৷ সে জায়গা থেকেই হয়ত এই চলচ্চিত্রটিকে এই পুরস্কার দেয়া হয়েছে৷’’

কানডকসে এই প্রথম সাউথ এশিয়ান শোকেসে চারটি ছবি নিয়ে আসে ইন্টারন্যাশনাল ইনিশিয়েটিভ অফ বাংলাদেশ, আইএফআইবি৷ চারটি ছবির মধ্যে বাংলাদেশের মুন্নি ছাড়াও রয়েছে আফগানিস্তানের বার্ডস স্ট্রিট, ভারত ও বাংলাদেশের যৌথ প্রযোজনায় ‘থার্টিন ডেসটিনেশন্স অফ আ ট্র্যাভেলার’ এবং নেপালের ‘দেবি’৷ এর মধ্যে দেবি পেয়েছে ‘অনারারি মেনশন’ এবং মুন্নি পেয়েছে থিঙ্ক-ফিল্ম ইমপেক্ট অ্যাওয়ার্ড৷

‘‘প্রথমবারের মতো সাউথ এশিয়া শোকেসে আসতে পারাটাই বড় বিষয় ছিল৷ তারওপর অনারারি মেনশন ও বাংলাদেশের তথ্যচিত্রটি অ্যাওয়ার্ড জেতায় খুব খুশি লাগছে৷ মুন্নির পুরস্কারটিও খুব সঠিক হয়েছে,’’ বলেন আইএফআইবি’র প্রেসিডেন্ট সামিয়া জামান৷

কানে এই চারটি চলচ্চিত্র সম্পর্কে এর আগে ৭ জুলাই অনলাইনে ও ১০ জুলাই সামনাসামনি বিস্তারিত তুলে ধরেন তিনি৷