আঞ্জুমান আরা খান

বৃষ্টির ছাঁটে হিমেল হাওয়া খোলা বাতায়নে,
প্রসন্ন বিকেলের রেশ নিয়ে গোধূলিবেলার
শেষ রেখা মিলিয়েছে খানিক আগেই…
আকাশের কালো মেঘের সাথে ধীরে ধীরে
গড়িয়ে নামছে আধাঁর।

টানা বর্ষণে ঝিঁ ঝিঁ পোকা খুঁজে নিয়ছে হয়ত সুরম্য কুঠুরি, ব্যাঙেরাও বুঝি ক্লান্ত!
সাঁঝবেলাটা আজ তাই এত মৌনতার।
কিন্তু আমার ভেতর তোলপাড় করা সময়!
নেতিয়ে পড়া পুরোনো চিঠির ভাঁজ খোলার কসরতে আমি ভেবে চলেছি…
বেলী ফুলের সুবাস মেখে কদমফোটা বর্ষা এলো,
কিন্তু তুমি এলেনা!

আজও কি তোমার মনে আছে সেইসব
ভূঁইচাঁপা সময়ের কথা?
প্রায় দিনই তুমি কাকভেজা হয়ে ফিরতে!
যেন শাড়ীর আঁচলে জল মুছিয়ে নেবার
আবেদনটুকু পাকা হয়েছিল তখন।
চায়ের পিয়ালা হাতে পাশাপাশি বসে
বৃষ্টি দেখেছি আঁধারে কত শত বর্ষারাত!
মনে রেখেছ কি ভুলে গেছ সে দায় তোমার।

আমি কেবল ফেরারী ভাবনাগুলো
জড়িয়ে রাখি বারেবার…
রাত বাড়ছে,বাড়ছে আঁধার…
অদূরে পাতা গড়িয়ে জল পড়ার শব্দটা ম্লান হয়ে এসেছে, বাহিরে এখন ভারী বর্ষণ! আকাশে নক্ষত্ররাজির কাছে আলোর
ছিটে ফোঁটোও নেই আজ!

ভাবনার সাগরে বাকীটা প্রহর প্রিয়মুখের কথা ভেবে
পাল তুলে দেবো ভোরের অপেক্ষায়…
সেই প্রিয়মুখ, আমি কষ্ট পেলে যার কষ্ট অবিরল,
আমি কাঁদলে যার চোখে আসে জল!