তৌহিদ চৌধুরী প্রদীপ : উপমহাদেশের প্রখ্যাত কণ্ঠশিল্পী বশির আহমেদ এর সুযোগ্য কন্যা দরদী কণ্ঠশিল্পী হোমায়েরা বশিরকে স্পেশাল কন্ট্রিবিউশন মিউজিক অ্যাওয়ার্ড প্রদান দেয়া হয়।

শনিবার (১৮ অক্টোবর) সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টায় ঢাকাস্থ হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টাল ক্রিস্টাল হলরুম “গোল্ডেন জুবিলী অ্যাওয়ার্ড সম্মাননা” প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন জাতীয় সংসদের বিরোধী দলীয় চীফ হুইপ সাবেক মন্ত্রী ও জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য মশিউর রহমান রাঙ্গা এমপি।

প্রধান আলোচক ছিলেন, মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ে সবেক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি এমপি।

ইউনাইটেড মুভমেন্ট ফর হিউম্যান রাইটসের আয়োজনে, ইউনাইটেড মুভমেন্ট ফর হিউম্যান রাইটসের সভাপতি এড: লুৎফুল আহসান’ বাবুর সভাপতিত্বে ও আসাধারণ সম্পাদক শাহরিয়ার স্বপন এর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন, ঢাকা বিশ্ব বিদ্যালয়ের উদ্ভিদ বিদ্যা বিভাগের প্রফেসর ড. হামিদা খানম পিএইচডি, আরটিভির চীফ ইঞ্জিনিয়ার ও বরাত জনকল্যাণ ফাউন্ডেশনের (রাজবাড়ি) প্রতিষ্ঠাতা ইঞ্জিনিয়ার নেসারুল হক, অতিরিক্ত সচিব বিশিষ্ট সাংষ্কৃতিক ব্যক্তিত্ব পীরজাদা শহীদুল হক, প্রখ্যাত সঙ্গীত ব্যক্তিত্ব ফেরদৌস আরা, অনন্য গীতিকার ও সুরকার হাসান মতিউর রহমান।

অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, উপমহাদেশের প্রখ্যাত কণ্ঠশিল্পী বশির আহমেদের সুযোগ্য কন্যা তার অসাধারণ সঙ্গীতের মাধ্যামের দেশ ও দেশের মানুষের জন্য নিবেদিতভাবে কাজ করছে। মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে সঙ্গীত শিল্পীদের কণ্ঠ যুদ্ধে দেশের আপামর মানুষকে ব্যপক উৎসাহ যোগিয়ে ছিল।

সেই কণ্ঠযোদ্ধাদের উত্তরসূরি হয়ে নতুন প্রজন্মকে শিক্ষা আর্জনের পাশাপাশি সঙ্গীতের আদর্শিক নীতিতে চলার প্রেরণা যুগাচ্ছে যে কণ্ঠ শিল্পীরা তাদেরই একজন হোমায়েরা বশির। সঙ্গীত মানুষের হৃদয়ের খোরাক, সঙ্গীতকে ভালোবাসে না এমন মানুষ নেই। তাই দেশীয় সঙ্গীত চর্চার মাধ্যমে বিশ্বের বুকে বাংলাদেশকেও পরিচয় করে দিতে দেশীয় সঙ্গীত চর্চার আহবান জানিয়ে হোমায়েরা বশিরের সাফল্য কামনা করেন তারা।

সম্মাননা প্রাপ্তির পর মনের অনুভূতি প্রকাশ করে শিল্পী হোমায়েরা আল্লাহর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে তার বাবা-মাকে এই অনুষ্ঠানে স্মরণ করেন। ভাই রাজা বশিরকে অনেক মিস করছেন বলেও জানান।

শিল্পী আরো বলেন আগামী ১৮ নভেম্বর তার বাবা বশির আহমেদ’র জন্মদিন উপলক্ষে বশির আহমেদ সম্মাননা ২০২১ আবার অনুষ্ঠিত হবে। যেখানে ৬ ক্যাটাগরিতে সম্মাননা প্রদান করা হবে।

হোমায়েরা জানান, তিনি এই পুরস্কারটি পেয়ে অনেক কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছেন এবং অনেক খুশি হয়েছেন এতে তার সংগীতের প্রতি দায়িত্ববোধ কে আরো বাড়িয়ে দেয়া হয়েছে।

তিনি আরো জানান, যে বেশ কয়েকটি মৌলিক গান নিয়ে তিনি কাজ করছেন। গানগুলো খুব শিগগিরই মিউজিক ভিডিও তৈরি হবে এবং একে একে শ্রুতাদের সামনে প্রকাশ পাবে। এর মধ্যে একটি গান আশিষ দেবরয় এর সুরে, রুপা খানমের লেখা রাজা বশিরের সঙ্গীতায়োজনে একটি গান আসছে। আরো একটি গান সিফাত শাহরিয়ারের কথায় সুর এবং সঙ্গীত আয়োজন করেছে রাজা বশির।

হোমায়েরা আরও বলেন, এই পুজোতে তিনি একটি রবীন্দ্রসঙ্গীত গাইবার চেষ্টা করছেন। এই সব গান সারগাম সাউন্ড স্টেশন ইউটিউব চ্যানেল থেকে প্রচারিত হবে। তিনি তার মরহুম পিতা-মাতা, ভাই রাজা , বৌমা রুনা ও সন্তান সারগাম এর জন্য সবার কাছে দোয়া প্রার্থনা করেছেন।