মোঃ সাইফুল ইসলাম, কটিয়াদী (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি : কটিয়াদীতে ব্যাপকহারে বেড়েছে মোটরসাইকেল চুরি। দিনের বেলায় হাসপাতাল,ম সজিদ ও ব্যাংকের আশপাশ থেকে চুরি হয়ে যাচ্ছে মোটরসাইকেল। রাতের বেলা সক্রিয় হয়ে উঠছে গ্রিল কাটা চক্র।

সংঘবদ্ধ চোরদের হাত থেকে চাকরিজীবী, রাজনীতিবিদসহ সাধারণ মানুষ কেউ বাদ পড়ছেন না। পৌরশহরসহ উপজেলার ৯টি ইউনিয়নে একের পর এক চুরির ঘটনায় মোটরসাইকেল মালিকদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। ক্ষতিগ্রস্তরা অভিযোগ করেও কোনো প্রতিকার পাচ্ছেন না বলে অভিযোগ উঠেছে।

জানা যায়, গত ৯ সেপ্টেম্বর বেথইর কেন্দ্রীয় মসজিদের সামনে মোটরসাইকেল রেখে জুম্মার নামাজ পড়ার সময় মুর্শিদ উদ্দিনের মোটরসাইকেল চুরি হয়। গত ১ বছরে কটিয়াদী থেকে অর্ধশত মোটরসাইকেল চুরি হলেও এখন পর্যন্ত কোনো মোটরসাইকেল পুলিশ উদ্ধার করতে পারেনি। আবার অনেকে মোটরসাইকেলের রেজিস্ট্রেশন না থাকায় অভিযোগও দায়ের করছেন না। অনেক ক্ষেত্রে সিসিটিভির ফুটেজে চোর পালানোর দৃশ্য স্পষ্ট হলেও অধরাই থেকে যাচ্ছে চোর চক্র। এ অবস্থা থেকে পরিত্রাণ পেতে অনতিবিলম্বে চোর চক্রকে গ্রেপ্তারের দাবি জানিয়েছে কটিয়াদীবাসী। সাবেক প্যানেল মেয়র মুর্শিদ উদ্দিনের মোটরসাইকেলটি উদ্ধার না হওয়ায় জনমনে প্রশ্ন উঠেছে, প্রভাবশালী লোকদেরই মোটরসাইকেল উদ্ধার হচ্ছে না, সাধারণ মানুষের মোটরসাইকেল উদ্ধার হবে কিভাবে?

স্থানীয়রা জানায়, পৌর এলাকার কটিয়াদী সদর হাসপাতাল,ইসলামী ব্যাংক ও সোনালী ব্যাংক,মসজিদের সামনে থেকে এবং রাতের বেলা বাসাবাড়ির গ্রিল কেটে চুরি করে নেয়া হচ্ছে মোটরসাইকেল।

এ ছাড়া গত এক বছরে পৌর এলাকার শীতল সাহা, রেফাত উল্লা, সানা, শাহীনুর রহমান সোহাগ, অমিত সাহা, জালালপুর ইউনিয়নের রেনু মেম্বারসহ বিভিন্ন ওষুধ কোম্পানির প্রতিনিধির অর্ধ শতাধিক মোটরসাইকেল চুরি হয়েছে।

কটিয়াদী উপজেলার বাগরাইট গ্রামের বাসিন্দা মোঃ আঃ রহমান বলেন, শুক্রবার জুম্মার নামাজ পড়ে বাসায় ফিরে দুপুরের খাবার শেষে ছুটির দিন থাকা ঘুমিয়ে পড়ি বিকেল ৪টায় দোতলা থেকে নিচে নেমে দেখি আমার মটর সাইকেলটি নেই আশপাশে বিভিন্ন জায়গায় খোঁজাখুজি করে কোন হদিস মেলেনি পরে সন্ধ্যায় থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছি। আজ-অব্দি কোন খবর মিলেনি।বনগ্রাম গ্রামের আনোয়ার হোসেনের একটি মোটর সাইকেল স্বপ্ন কুঞ্জ কমিউনিটি সেন্টারের সামনে থেকে নিয়ে যায়, সিসি টিভি ফুটেজ থাকা সত্ত্বেও উদ্ধার করা সম্ভবত হয়নি।

কটিয়াদী উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাবেক আহ্বায়ক রেফাতউল্লাহ জানান, আমার নিজেরই দুটি মোটর সাইকেল চুরি হয়ে গেছে। সর্বশেষ ৭ মাস আগে মোটরসাইকেল চুরি হয়। শুধু পৌর এলাকা নয়, ইউনিয়ন পর্যায় থেকেও নিয়মিত মোটরসাইকেল চুরির খবর পাওয়া যায়।

এ বিষয়ে কটিয়াদী মডেল থানার ওসি এসএম শাহাদাত হোসেন বলেন, চুরি হয়ে যাওয়া মোটরসাইকেলগুলো উদ্ধারসহ চোর চক্রকে ধরতে ব্যাপক তৎপরতা চালানো হচ্ছে। ইতোমধ্যে গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। আশা করি, দ্রুত সময়ের মধ্যে চোর চক্রকে আইনের আওতায় আনা সম্ভব হবে।