হুমায়ুন কবির জুশান, কক্সবাজার : কক্সবাজার শহরের কলাতলীর কটেজ জোনের বন্দিদশা থেকে রোববার রাতে চার বন্দীকে উদ্ধার করেছে ট্যুরিস্ট পুলিশ। এ সময় ১১ দালালকে আটক করা হয়েছে।

কলাতলীর শিউলি কটেজ থেকে এই বন্দীদের আটক করা হয় এবং বিভিন্ন স্থান থেকে বিচ্ছিন্নভাবে দালালদের আটক করা হয়।

উদ্ধার হওয়াদের মধ্যে দু’জন শিশু ও দু’জন যুবক রয়েছে। শিশু দুটির বাড়ি কক্সবাজার বাসটার্মিনাল এলাকার দক্ষিণ ডিককুল ও দু’যুবকের বাড়ি টেকনাফের শাহপরীর দ্বীপ ও সাতকানিয়া।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে ট্যুরিস্ট পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রেজাউল করিম সাংবাদিকদের জানান, ‘দালালরা ভুল বুঝিয়ে কটেজ জোনের শিউলি কটেজে নিয়ে গিয়ে কয়েকজন পর্যটককে আটকে রাখার খবর পায় ট্যুরিস্ট পুলিশ। এই খবর পেয়ে সেখানে অভিযান চালানো হয়। অভিযানে বন্দী চারজনকে উদ্ধার করা হয়। তবে পিছনের গোপন পথ দিয়ে পালিয়ে যায় অপরাধীরা।’

তিনি আরো জানান, সারারাত কটেজ জোনের বিভিন্ন স্থানে পৃথক পৃথক অভিযান চালিয়ে ১১ দালালকে আটক করা হয়।

উদ্ধার হওয়া ভুক্তভোগীদের উদ্ধৃতি দিয়ে ট্যুরিস্ট পুলিশের এই কর্মকতা বলেন, ‘ভুক্তভোগীদের দু’জন রোগী নিয়ে হাসপাতালে এসে রাত কাটানোর জন্য সস্তা কক্ষ খুঁজতে কটেজ জোনে যান। সেখানে পথিমধ্যে দালালের খপ্পরে পড়ে তারা। দালালরা কম দামের কক্ষের কথা বলে শিউলি কটেজে নিয়ে যায়। সেখানে নিয়ে গিয়ে আরো অধিক দাম দাবি করে। তা না দেয়ায় তাদের কক্ষের মধ্যে আটকে রেখে বাইরে থেকে তালা লাগিয়ে দেয়া হয়।’

রেজাউল করিম বলেন, ‘দীর্ঘদিন ধরে কটেজ জোন কেন্দ্রিক গড়ে ওঠা অপরাধীরা নানা অপরাধ কর্মকাণ্ড চালাচ্ছে। এর মধ্যে পর্যটক হয়ররানি, অপহরণ করে মুক্তিপণ আদায়, অসামাজিক কার্যকলাপসহ আরো নানা অপরাধ কর্মকাণ্ড চালাচ্ছে।’

এসব অপরাধী আইনের আওতায় আনতে ট্যুরিস্ট পুলিশ অভিযান চালিয়ে যাচ্ছে বলেও জানান তিনি।