উখিয়া কোটবাজার ষ্টেশনে দীর্ঘ যানজট         

হুমায়ুন কবির জুশান, কক্সবাজার : কক্সবাজার-টেকনাফ শহিদ জাফর আলম আরাকান সড়কের উখিয়ায় তীব্র যানজটে ভোগান্তিতে পড়েছেন চালক, যাত্রী ও পথচারিরা। এই যানজট নিরসনে উখিয়া উপজেলা প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিরা রাস্তায় নেমেছেন। এরপরও হঠাৎ যানজটে, জনজট ও গাড়ির জট চোখে পড়ার মতো।

স্থানীয় নুরুল আলম জানান, উখিয়া থেকে কোটবাজারে যেতে যেখানে সময় লাগতো সাত থেকে আট মিনিট। সেখানে আছরের নামাজের পর গাড়িতে উঠলে মাগরিবের নামাজ পড়তে হতো গাড়িতে বসেই। সেই তুলনায় যানজট অনেকটাই কমেছে। তবে এখন ঈদের সময়, তাই যানজট লেগেই থাকে। যানজটের অন্যতম কারণ হিসেবে তিনি বলেন, হাজার হাজার টমটম ও মিনি টমটমের ফলে উখিয়ায় যানজট লেগে থাকে। নবাগত উখিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইমরান হোসাইন সজীব সম্প্রতি রত্নাপালং ইউনিয়ন পরিষদে টমটম চালকদের নিয়ে মতবিনিময় করেছেন।

রত্নাপালং ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নুরুল হুদা বলেছেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার দিক-নির্দেশনা মোতাবেক আমরা কোটবাজার এলাকাকে যানজট মুক্ত করতে একসাথে কাজ করছি। এমন কি আমি নিজেও রাস্তায় দাড়িঁয়ে চালকদের সাথে কথা বলে যানজট নিরসনে কাজ চালিয়ে যাচ্ছি। রোহিঙ্গা ক্যাম্পে এনজিওর গাড়ির চাপ বাড়ায় এ সমস্যা তৈরি হয়েছে বলে জানান তিনি।

রোহিঙ্গা ক্যাম্প সংলগ্ন কুতুপালং বাজারে যানজট নিত্যনৈমিত্তিক ব্যাপার। ঈদকে সামনে রেখে যানজট নিরসন কল্পে রাস্তায় নেমেছেন রাজাপালং ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ড় মেম্বার হেলাল উদ্দিন। তিনি জানান, এনজিওর গাড়ির পাশাপাশি টমটম চালকদের সচেতন করতে রাস্তায় নেমেছি। উখিয়া সদর ষ্ঠেশনে তীব্র জটের সৃষ্টি হয়। সে ক্ষেত্রে উখিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ সন্জুর মোর্শেদ নিজেই যানজট নিরসনে চেষ্টা চালান এবং পুলিশকে দিক নির্দেশনা দেন।

সরেজমিন দেখা যায়, মরিচ্যা বাজার, কোটবাজার, উখিয়া সদর, কুতুপালং বাজার, বালুখালী পানবাজার, এবং থাইংখালী ষ্টেশনে যানজটের সৃষ্টি হয়।

এ ছাড়া উখিয়া উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ ষ্টেশনে গাড়ির জট দেখা গেছে। রুবেল নামের এক প্রাইভেটকার চালক জানান, উখিয়া ষ্টেশনে দীর্ঘ যানজট দেখে বিকল্প উখিয়া সদর দারোগা বাজার রাস্তা দিয়ে যাচ্ছিলাম। ওখানেও যানজটের কবলে পড়ে আমার প্রাইভেটকারটি টমটমকে সাইড দিতে গিয়ে ড্রেনে পড়ে যায়।


উখিয়া দারোগা বাজারে প্রাইভেটকার ড্রেনে

এতে যানজট আরো দীর্ঘ হতে থাকে। পরে অবশ্য স্থানীয় পথচারিদের সহায়তায় যাানজট স্বাভাবিক হয়ে ওঠে। স্থানীয়রা জানিয়েছেন, উখিয়া সদর ষ্টেশনে যানজট যখন লেগে যায় তখন কক্সবাজার-টেকনাফ সড়কের উখিয়া ষ্টেশন লাগোয়া দারোগা বাজারের সড়ক দিয়ে এনজিওর গাড়িসহ বিভিন্ন যানবাহন চলাচল করে। এতে বাজারে ক্রেতা-বিক্রেতাদের মারাত্নকভাবে ভোগান্তি পোহাতে হয়। ঈদকে সামনে রেখে ঘরমুখী মানুষের চাপ বাড়ে। কক্সবাজার-টেকনাফ সড়কের সঙ্গে বিভিন্ন এলাকায় সংযোগ সড়কের মুখে আঞ্চলিক পরিবহনের স্ট্যান্ডের কারণে গাড়িচলাচলে বিগ্ন হয়ে যানজট প্রকট আকার ধারণ করে।