এম আবু হেনা সাগর, ঈদগাঁও (কক্সবাজার) : কক্সবাজার সদরের ইসলামপুরের ‘খাঁন বীচ’ বিনোদনের নতুন স্পট হিসেবে তরুণ প্রজন্মের কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। সড়কের দুই পাশ জুড়েই পানির কলকলানী আর ঢেউয়ের শব্দ। খাঁন ঘোনা জাপানি সড়কের স্কুল পয়েন্টটিও মনোমুগ্ধকর। সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত বিনোদনপ্রিয় ভ্রমণ পিপাসুদের আনাগোনা লেগেই আছে। একটু স্বস্তি নিতে, মৃদু হাওয়া শান্তির পরশ পেতে এখন অনেকেই ছুটে যান খাঁন ঘোনা সড়কে।

বিশেষ করে, পড়ন্ত বিকেলে লোকে লোকারণ্য হয়ে যায় সড়কের দু’পাশ। সেটি স্থায়ী থাকে সন্ধ্যার আগ মুহূর্ত পর্যন্ত। বিশুদ্ধ বাতাস ও প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের টানে ছুটে আসেন অসংখ্য মানুষ। তাদের কেউ সড়কের কিনারে বসে আড্ডা দেন, কেউ বা সড়কের কিনার ধরে হেঁটে প্রকৃতির সৌন্দর্য উপভোগ করেন। আবার অনেকেই কাছের ঘেরের নৌকায় উঠে নৌ-ভ্রমণ করেন।

বুধবার ৭ জুলাই সরেজমিনে খাঁন বীচ ঘুরে দেখা যায়, সড়কের দুই পাশের দৃষ্টিনন্দন চিংড়ি ঘেরের ছোট ছোট ঢেউ আর ডিঙ্গি নৌকা। মনোরম পরিবেশ। ভাললাগার জায়গা। মন জুড়ানোর জায়গা। সন্ধ্যার আগমুহূর্তে লোকজনে ভরপুর। তবে এখানে নেই বসার নির্দিষ্ট জায়গা। সড়কের কিনারই বসার স্থান। সড়ক দিয়ে হেঁটে অপরূপ সৌন্দর্য্য অবলোকন করে বিভিন্ন স্থান থেকে আসা ভ্রমনপিপাসুরা।

স্থানীয়রা জানালেন, প্রতিদিনই লোকজন আসা-যাওয়া করছে ইসলামপুরের এই খাঁন বীচে। বিশেষ করে ছুটির দিনগুলোতে থাকে উপচেপড়া ভিড়।

এখানে ঘুরতে আসা সেচ্ছাসেবী সংগঠক ইমরান তাওহীদ রানা জানান, বিকেলের সময় কাটানোর জন্য বিনোদনের স্পট হচ্ছে খাঁন বীচ। এখানকার মতো বিশুদ্ধ বাতাস আর কোথাও নেই। তাই মাঝে মধ্যে ঘুরতে আসা। স্থানটি দৃষ্টিনন্দন।

শিক্ষার্থী আবদুল্লাহ জানান, খাঁন বীচের মনোরম দৃশ্য আর মৃদুমন্দ বাতাস, চিংড়ি ঘেরের নৌকায় ভ্রমণ আর পানির শব্দ যেন ভোলার নয়। একবার নয়, বারবার ছুটে যেতে মন চায়।