খোলাবার্তা২৪ ডেস্ক : ভারতের ঝাড়খণ্ড রাজ্যের লোহারদাগায় এক যুবক তার দুই বান্ধবীকে একই সঙ্গে বিয়ে করে হৈ-চৈ ফেলে দিয়েছেন। এই বিয়েতে দুই কনে ও তাদের পরিবারেরও সন্মতি ছিল।

কুসুম লাকড়া এবং স্বাতী কুমারী নামে দুই তরুণী সন্দীপ ওরাওকে ভালবাসতেন। লোহারদাগার ভান্দ্রা ব্লকের বান্দা গ্রামে একই দিনে একই মণ্ডপে প্রেমিকের সঙ্গে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হলেন তারা।

এর আগে থেকেই সন্দীপ ওরাও এবং কুসুম লাকড়া তিন বছর ধরে লিভ-ইন সম্পর্কে ছিলেন। তাদের একটি সন্তানও রয়েছে। তাদের প্রেমের গল্প এক বছর আগে নয়া মোড় নেয়। যখন, সন্দীপ পশ্চিমবঙ্গের একটি ইটভাটায় কাজ করতে যান। সেই সময়েই সন্দীপের দেখা হয় স্বাতী কুমারী নামে আরেক তরুণীর সঙ্গে। স্বাতীও সেই ইটভাটাতেই কাজ করতেন। কাজ শেষে সন্দীপ গ্রামের বাড়িতে ফেরার পরেও দু’জনের দেখা-সাক্ষাৎ অব্যাহত ছিল। শেষে তাদের পরিবারের সদস্য ও গ্রামবাসী তাদের সম্পর্কের কথা জানতে পেরে এতে প্রবল বিরোধিতা শুরু করেন।

দীর্ঘ ঝগড়া, বিবাদ ও অশান্তির পর গ্রামবাসী পঞ্চায়েত ডাকে। পঞ্চায়েত সিদ্ধান্ত নেয় যে সন্দীপকে উভয় মহিলাকেই বিয়ে করতে হবে। আশ্চর্যের বিষয় হল- দুই তরুণী বা তাদের পরিবারের কেউ-ই এই বিয়ে নিয়ে কোনো আপত্তি করেননি।

সংবাদমাধ্যমকে সন্দীপ বলেন, আমি জানি, এই বিয়ে নিয়ে আমাকে আইনি জটিলতায় পড়তে হবে। তবে আমি এদের দু’জনকেই ভালবাসি, এদের কাউকে ছাড়া থাকাই আমার পক্ষে সম্ভব নয়। – আনন্দবাজার অনলাইন