ঘাতক পলাশ (বামে) ও নিহত এএসআই পিয়ারুল ইসলাম (ডানে)

মিজানুর রহমান মিজান, রংপুর অফিস : রংপুরে ছুরিকাঘাতে পুলিশ কর্মকর্তা নিহতের ঘটনায় আসামী পলাশের ৫ দিনের রিমান্ড চেয়ে আবেদন, আজ শুনানি। মহানগর পুলিশের হারাগাছ থানার বাহার কাছনা এলাকায় মাদক মামলার আসামীকে ধরতে গিয়ে আসামীর ছুরিকাঘাতে হারাগাছ থানার এএসআই পিয়ারুল ইসলাম নিহতের ঘটনায় গ্রেফতার একমাত্র আসামী পলাশকে মাদক মামলায় ৫ দিনের রিমান্ড চেয়ে আবেদন করা হয়েছে।

রোববার সন্ধ্যার পরে মেট্রোপলিটন হারাগাছ আমলী আদালতের বিচারকের নিকট এই রিমান্ডের আবেদন করা হয়। সোমবার রিমান্ডের শুনানীর তারিখ ধার্য করা হয়েছে।

এদিকে গ্রেফতার আসামী পারভেজ রহমান পলাশকে শনিবার রাতেই হত্যা মামলায় শ্যোন এরেস্ট দেখিয়ে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। বিষয়টি জানিয়েছেন রংপুর মহানগর পুলিশের অপরাধ বিভাগের উপ-পুলিশ কমশিনার আবু মারুফ হোসেন।

জানা গেছে, শুক্রবার রাত সড়ে এগারোটার দিকে হারাগাছ থানার এএসআই পিয়ারুল ইসলামের নেতৃত্বে একদল পুলিশ নগরীর বাহার কাছনা এলাকায় জাহিদুল ইসলামের ছেলে মাদক ব্যবসায়ী পারভেজ রহমান পলাশ (২৬) কে ইয়াবা ও গাঁজাসহ আটক করে পুলিশ।

এ সময় আসামী পলাশ পুলিশ কর্মকর্তা এএসআই পিয়ারুলকে ছুরি দিয়ে আঘাত করলে তাকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানেই শনিবার সকাল ১১ টা, ১৭ মিনিটে তিনি মারা যান। ঘটনার সময় পলাশকে পুলিশ গ্রেফতার করেন। হারাগাছ থানার এসআই জোতিষ চন্দ্র বাদি হয়ে মাদক ও এসআই জিল্লুর রহমান বাদি হয়ে একটি হত্যা মামলা করেন।

নিহত পুলিশ কর্মকর্তা কুড়িগ্রামের রাজারহাট উপজেলার বিদ্যানন্দন ইউনিয়নের ডাঙ্গারহাট এলাকায় চন্দ্রেরপাড় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুর রহমান মিন্টু মিয়ার ছেলে। মহানগর পুলিশের হারাগাছ থানার বাহার কাছনা এলাকায় মাদক মামলার আসামীকে ধরতে গিয়ে আসামীর ছুরিকাঘাতে হারাগাছ থানার এএসআই পিয়ারুল ইসলাম নিহতের ঘটনায় গ্রেফতার একমাত্র আসামী পলাশকে মাদক মামলায় ৫ দিনের রিমান্ড চেয়ে আবেদন করা হয়েছে।

রোববার সন্ধ্যার পরে মেট্রোপলিটন হারাগাছ আমলী আদালতের বিচারকের নিকট এই রিমান্ডের আবেদন করা হয়। আজ সোমবার রিমান্ডের শুনানীর তারিখ ধার্য করা হয়েছে।