সাতকানিয়া (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি : চট্টগ্রামের সাতকানিয়া সদর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ৭ নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বার প্রার্থী মোহাম্মদ আলমগীর ঋণ খেলাপির তথ্য গোপন করে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। একই ওয়ার্ডে মনোনয়নপত্র জমাকারি অপর প্রার্থী মোহাম্মদ এমরান এমন অভিযোগ করে উপজেলা রিটার্নিং অফিসারের কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন। তবে, মোহাম্মদ আলমগীর তার কোন ঋণ খেলাপী নেই বলে দাবি করেছেন।

রিটার্নিং অফিসার বরাবরে লিখিত অভিযোগে বলা হয়েছে, ৭ নং ওয়ার্ডের ইউপি মেম্বার প্রার্থী ও স্থানীয় বারদোনা এলাকার মোহাম্মদ ইসহাকের সন্তান মোহাম্মদ আলমগীর আগামী ৭ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিতব্য ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে অংশগ্রহনের জন্য মনোয়নপত্র জমা দিয়েছেন। এতে তিনি পূবালী ব্যাংক লিমিটেড, চট্টগ্রাম নগরের ইন্ডাস্ট্রিয়াল এরিয়া শাখার বিপুল পরিমাণ ঋণ খেলাপির তথ্য গোপন রেখেছেন। এ সংক্রান্ত একটি ব্যাংক প্রতিবেদন মো. এমরান রিটার্নিং অফিসারের কাছে পত্রের সঙ্গে সংযুক্ত করেছেন।

তিনি অভিযোগে উল্লেখ করেছেন, ঋণ খেলাপি থাকলে যে কোন নির্বাচনে অংশগ্রহণে প্রার্থী যোগ্যতা হারায়। এ ব্যাপারে পদক্ষেপ নেয়ার দাবি জানিয়েছেন তিনি।

ঋণ খেলাপির বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে মোহাম্মদ আলমগীর বলেন, আমার নামে কোন ব্যাংকে ঋণ খেলাপি নেই। পূবালী ব্যাংকে ২০১৬ সালের দিকে কিছু ঋণ খেলাপি ছিল। যা পরিশোধ করে দিয়েছি। আমার জনপ্রিয়তায় ইর্ষান্বিত হয়ে এমরান এমন প্রচারণা চালাচ্ছে।

এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে রিটার্নিং অফিসার আজীম শরীফ বলেন, আগামীকাল শনিবার বাছাই পর্ব। যাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে তা খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এদিকে খেলাপি ঋণের বিষয়ে পূবালী ব্যাংক ইন্ডাস্ট্রিয়াল এরিয়া শাখার ম্যানেজার স্বপন কুমার দে বলেন, ঋণ খেলাপি হিসাবে আছে আলমগীর। অনেকদিন যোগাযোগও করেনি। কেন্দ্রীয়ভাবে সার্কুলার পেলে আগামীকাল বাচাই পর্বে আমাদের প্রতিনিধি উপস্থিত থেকে অভিযোগ দায়ের করবে। তবে এখনো কোন পত্র হেড অফিস থেকে আসেনি।