খোলাবার্তা২৪ ডেস্ক : আমেরিকায় উল্লেখযোগ্যভাবে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ার সঙ্গে বাড়ছে উদ্বেগ। এরই মধ্যে বিশেষজ্ঞরা সতর্ক করেছেন, যে ভাবে ওমিক্রন বাড়ছে তাতে ২০২২ সালের গোড়া থেকেই আমেরিকাবাসীর দৈনন্দিন জীবনে আমূল পরিবর্তন ঘটে যেতে পারে।

ব্রাউন ইউনিভার্সিটির স্কুল অব পাবলিক হেলথের ইমার্জেন্সি মেডিসিনের অধ্যাপক মেগান রানি বলেন, ‘‘ওমিক্রন সর্বত্র রয়েছে। পরিস্থিতি এমন যে, আগামী কয়েক মাসের মধ্যে আমাদের অর্থনীতি ভেঙে পড়তে পারে বলে মনে হচ্ছে। ফেডারেল সরকার বা রাজ্য সরকারের নীতিগুলির কারণে নয়, বরং অনেকের অসুস্থতার কারণেই অর্থনীতি ভেঙে পড়তে পারে।’’

জন্স হপকিন্স ইউনিভার্সিটির সর্বশেষ তথ্য অনুসারে, এই সপ্তাহে সাত দিনের গড়ে নতুন রেকর্ড গড়েছে আমেরিকা। শুক্রবার ৩,৮৬,০০০ জনেরও বেশি মানুষ কোভিডে আক্রান্ত হয়েছেন।

নিউ ইয়র্ক সিটিতে মেট্রোপলিটন ট্রান্সপোর্টেশন অথরিটি (এমটিএ) কর্মীরা সমস্যায় জর্জরিত। তাঁরা ঘোষণা করেছেন, বিভিন্ন লাইনের মেট্রো রেল পরিষেবা বন্ধ করা হয়েছে৷

শনিবার নিউ ইয়র্কের গভর্নর ক্যাথি হোচুলে জানান, সেখানে এক দিনে ৮৫,৪৭৬ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছে। নিউ ইয়র্কে সাত দিনের আক্রান্তের হার ১৯.৭৯ শতাংশ।

সংক্রমণ উল্লেখযোগ্য বৃদ্ধির পরে স্বাস্থ্যসেবা পরিষেবাগুলিও বিপর্যস্ত। ইউনিভার্সিটি অব মেরিল্যান্ড ক্যাপিটাল কোভিড পরিষেবায় স্বাস্থ্যকর্মীদের ঘাটতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। তারা শুক্রবার এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, ‘বর্তমান চাহিদার তুলনায় স্বাস্থ্যকর্মীদের সংখ্যা কম।’

করোনা ভাইরাস ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি পাওয়ার পরেই বিশেষজ্ঞরা পুনরায় স্কুল খোলার বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। বিশেষজ্ঞদের মতে, এই উচ্চ সংক্রমণের কারণে পরবর্তী সপ্তাহগুলিতে স্কুলগুলি খুলে রাখা কঠিন হতে চলেছে। বিশেষ করে স্কুল শিক্ষক, বাস ড্রাইভার, ক্যান্টিন কর্মীরা করোনা আক্রান্ত হলে পড়ুয়াদেরও আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থাকছে। ম্যাসাচুসেটস টিচার্স অ্যাসোসিয়েশন এই সপ্তাহে রাজ্য শিক্ষা কমিশনারকে স্কুলগুলি বন্ধ রাখার আবেদন জানিয়েছে।