ছবি: সংগৃহীত

শেখ আজিজুল হক, গাজীপুর মহানগর : রোববার পূর্বাহ্নে আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে তাবলিগের আ’লমী শূরার আয়োজনে অনুষ্ঠিত ৫৬তম বিশ্ব ইজতেমার প্রথম ধাপ শেষ হচ্ছে। এর পর আগামী শুক্রবার থেকে মাওলানা সাদ কান্দলভিপন্থীদের আয়োজনে অনুষ্ঠিত হবে দ্বিতীয় ধাপে এবারের বিশ্ব ইজতেমা।

রোববারের আখেরি মোনাজাত উপলক্ষে আজ শনিবার মধ্যরাত থেকে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের রাজধানীর আব্দুল্লাহপুর থেকে গাজীপুর মহানগরীর ভোগড়া বাইপাস পর্যন্ত, টঙ্গী-কালীগঞ্জ-নরসিংদী সড়কের স্টেশন রোড থেকে মিরের বাজার পর্যন্ত, টঙ্গী-আশুলিয়া সড়ক ও টঙ্গী-আশুলিয়া বাইপাস (কামার পাড়া) সড়কে সব ধরণের যান চলাচল বন্ধ থাকবে।

গাজীপুর মহানগর পুলিশের (জিএমপি) কমিশনার মোল্ল্যা নজরুল ইসলাম শনিবার বেলা সাড়ে ১১টায় ইজতেমা ময়দানের কেন্দ্রীয় কন্ট্রোল রুমে এক প্রেসব্রিফিংয়ে আখেরি মোনাজাত উপলক্ষে যানবাহন নিয়ন্ত্রণ পরিকল্পনা তথা ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা তুলে ধরেন।

তিনি বলেন, ইজতেমার আখেরী মোনাজাত উপলক্ষে আমরা জিএমপির ট্রাফিক বিভাগকে ঢেলে সাজিয়েছি। যেহেতু দূর-দূরান্ত থেকে মোনাজাতে অংশগ্রহণের জন্য মুসল্লিরা আসবেন, সেহেতু আমরা শনিবার (১৪ জানুয়ারি) রাত ১২টার পর থেকে কয়েকটি সড়ক বন্ধ রাখবো।

জিএমপি কমিশনার জানান, আখেরি মোনাজাতে দেশ-বিদেশের লাখ লাখ ধর্মপ্রাণ মুসল্লি অংশ নেবেন। এ কারণে তাদের সুবিধার জন্য শনিবার রাত ১২টা থেকে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের রাজধানীর আবদুল্লাহপুর থেকে গাজীপুর মহানগরীর ভোগড়া বাইপাস, আবদুল্লাহপুর থেকে কামারপাড়া রোড হয়ে গাজীপুর মহানগরীর টঙ্গী স্টেশন রোড পর্যন্ত সড়ক এবং আবদুল্লাহপুর থেকে আশুলিয়ার বাইপাইল পর্যন্ত সড়কে সকল ধরণের যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকবে।

সেক্ষেত্রে ঢাকাগামী লোকজন ও যানবাহনগুলোকে ভোগরা বাইপাস দিয়ে তিনশ ফিট রাস্তা ব্যবহার করে চলাচল করতে বলা হয়েছে। যেসব লোকজন ময়মনসিংহ বা গাজীপুর যাবেন, তারা আশুলিয়া বাইপাল থেকে জয়দেবপুর চৌরাস্তা হয়ে ময়মনসিংহের দিকে চলে যাবেন

মোল্ল্যা নজরুল ইসলাম বলেন, ‘ইজতেমা মাঠে যারা শুরা সদস্য আছেন, তাদের সঙ্গে আমরা কথা বলেছি। চেষ্টা করছি যেন রোববার বেলা ১১টার মধ্যে আখেরি মোনাজাত শুরু হয়। সবাই যাতে সুন্দর এবং সুষ্ঠুভাবে ইজতেমা সম্পন্ন করতে পারেন, সেই লক্ষ্যে জিএমপিসহ পুলিশের অন্যান্য ইউনিট একযোগে কাজ করে যাচ্ছে।’

এ সময় ট্যুরিস্ট পুলিশের উপ-মহা পুলিশ পরিদর্শক (ডিআইজি) মোহাম্মদ ইলিয়াস শরীফ, অতিরিক্ত মহা-পুলিশ পরিদর্শক (এডিশনাল ডিআইজি) আবু সুফিয়ান, জিএমপির অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার মো: দেলোয়ার হোসেন, উপ-কমিশনার (ট্রাফিক) আলমগীর হোসেন, অপরাধ বিভাগের উপ-কমিশনার (উত্তর) আবু তোরাব মো. শামসুর রহমান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্বের দ্বিতীয় দিন শনিবারও গাজীপুরের টঙ্গীর তুরাগ নদীর তীরে মুসল্লিদের ঢল অব্যাহত রয়েছে। দেশ-বিদেশের খ্যাতনামা আলেমরা বিভিন্ন বিষয়ে বয়ান করছেন। ইবাদত-বয়ানে মশগুল হয়ে রয়েছেন মুসল্লিরা। শনিবার বাদ ফজর বয়ান করেন পাকিস্থানের মাওলানা খুরশিদুল হক, সকাল ১০টায় আলেমদের উদ্দেশ্যে বয়ান করেন ভারতের আল্লামা ইব্রাহিম দেওলা, মাদ্রসা ছাত্রদের উদ্দেশ্যে বয়ান করেন পাকিস্থানের মাওলানা খুরশিদ আলম, মধ্যপ্রাচ্য তথা আররি ভাষাভাষীদের উদ্দেশ্যে বয়ান করেন ভারতের মাওলানা আহমদ লাট, বোবা ও বধিরদের উদ্দেশ্যে বয়ান করেন ভারতের ভারতের মাওলানা সানোয়ার হোসেন, ইংরেজ ভাষাবাষীদের উদ্দেশ্যে বয়ান করেন পাকিস্থানের মাওলানা ইফতার জমান।

এর পর বাদ জোহর বয়ান করেন ব্যঙ্গালুরের (ভারত) মাওলানা ফারুক হোসেন, বাদ আসর বয়ান করেন ভারতের মাওলানা যুহাইরুল হাসান, মাব মাগরিব বয়ান করেন ভারতের আল্লামা ইব্রাহিম দেওলা।

রোববার বাদ ফজর ভারতের মাওলানা আব্দুর রহমান ও আখেরি মোনাজাতের আগে ভারতের আল্লামা ইব্রাহিম দেওলা হেদায়েতি ও সমাপনি বয়ান করার কথা রয়েছে।

আখেরি মোনাজাত করবেন তাবলিগ জামাতের স্বাগতিক বাংলাদেশের শীর্ষ মুরব্বী কাকরাইল মারকাজ মসজিদের খতিম মাওলানা ক্বারী যোবায়ের হাসান। তাঁর আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হবে এবারের বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব। বরাবরের মতো এবারও সকাল ১০টা থেকে সাড়ে ১১টার মধ্যে আখেরি মোনাজাত অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছ।